+

পৃথিবীর বুকে নরকের দরজা

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৩ দিন ১০ ঘন্টা ৮ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 1105
...

 

পৃথিবীর প্রায় সব ধর্মে স্বর্গ এবং নরকের কথা বলা হয়েছে। যে ব্যক্তিরা জীবদ্দশায় ভাল কাজ করে, তারা মৃত্যুর পর স্বর্গে যায়। আর যারা খারাপ কাজ করে, মৃত্যুর পর শাস্তি হিসেবে তাদের স্থান হয় নরকে। নরকের শাস্তির যে কথা বলা হয়েছে তা প্রায় সব ধর্মেই। নরকে বিশাল আগুনের গর্তের মধ্যে পাপী ব্যক্তিকে ফেলে দেওয়া হবে, আর সেখানে সেই ব্যক্তি জ্বলতে পুড়তে থাকবে অনন্তকাল। পৃথিবীতে এমন একটি জায়গা আছে যাকে বলা হয় নরকের দরজা ।

নরকের দরজা এর অবস্থানঃ
তুর্কমেনিস্তানের কারাকুম মরুভূমির একটি সহজ সাধারণ স্থান হল দরওয়াজা গ্রাম । রাজধানী আসকাবাদ থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত । মাত্র ৩০০ মানুষের বসবাস রয়েছে সেই গ্রামে । সেখানে গেলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন, হাড়হিম হয়ে যাবে, গায়ে কাটা দেবে । এখানে গেলে আপনি দেখতে পাবেন একটি বড়ো আগুনের গর্ত । যার ব্যাস ৬৯ মিটার ও গর্ত ৩০ মিটার দীর্ঘ গভীর । সেই গর্তের মধ্যে এখন দাউ দাউ করে জ্বলছে আগুন, যে আগুন কখন নেভেনা । এই কারণের জন্য গ্রামটি আলাদা মাত্রা পায় । রাতের বেলা আগুনের শিখাগুলো বেশ স্পষ্ট হয় । সেসময় দূর থেকে এই দৃশ্য ভয়ংকর সুন্দর লাগে । ভ্রমণবিলাসী মানুষদের জন্য এটি একটি বিস্ময়কর দৃশ্য। গ্রামের মানুষরা সেই গর্তটির নাম দিয়েছেন ‘নরকের দরজা’ । আবার এটি ‘শয়তানের সুইমিং পুল’ নামেও  পরিচিত।

নরকের দরজা আবিস্কার:
এটা কিন্তু কোন কোন প্রাকৃতিক গর্ত নয়। এতা মুলত ছিল একটি গ্যাস ক্ষেত্র। এই স্থানের ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৯৭১ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রাকৃতিক গ্যাসসমৃদ্ধ এই ক্ষেত্রটি আবিষ্কার করে। কিন্তু প্রথমে তারা মনে করেছিল এটি একটি তেল ক্ষেত্র তাই ড্রিলিং মেশিন দিয়ে তেল উত্তোলনের জন্য সেখানে তারা ক্যাম্প স্থাপন করে।
তেল উত্তলনের প্রচেষ্টায় কাজ করার সময় দুর্ঘটনাক্রমে সেখানকার মাটি ধসে পরে। পুরো ড্রিলিং রিগসহ সবকিছু চলে যায় মাটির নিচে। মারা যায় অনেক লোক। আর সৃষ্টি হয়  আগুনে ভরা বিশাল গর্ত। বিশাল সেই গর্ত থেকে বেরিয়ে আসতে থাকে বিষাক্ত মিথেন গ্যাস। পরিবেশে বিষাক্ত গ্যাস প্রতিরোধ করার জন্য ভূতত্ত্ববিদরা তখন গ্যাস ওঠার মুখটি জ্বালিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নেন। তাদের ধারণা ছিল এখানে সীমীত পরিমাণ গ্যাস থাকতে পারে। কিছুক্ষন আগুন জালিয়ে রাখলে গ্যাস শেষ হয়ে যাবে এবং আবার তারা কাজ শুরু করতে পারবে। কিন্তু তাদের ধারণা ভুল প্রমান করে এটি সেই ১৯৭১ সাল থেকে শুরু করে এখনও জ্বলছে। এই আগুনের তাপ এত বেশি যে গর্তের আশে পাশে ২ মিনিটের বেশি দাড়িয়ে থাকা অসম্ভব। আর এরপর থেকেই স্থানটির নাম রাখা হয়েছে ‘নরকের দরজা’।

কবে শেষ হবে নরকের এই আগুন?
এ যেন আসলেও এক নরকের দরজা! যে দরজার মুখে জ্বলছে অনবরত জ্বলছে গনগনে আগুন। কোনো বিরতি নেই। জ্বলছে তো জ্বলছে। ৪৬ বছর পেরিয়ে গেছে, এখনও আগুন জ্বলছে। আর কতদিন জ্বলবে এই আগুন? কারো তা জানা নেই।

...
MD. Shajalal Rana(SJB:E078)
Mobile : 01881715240

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

সর্বশেষ সংবাদ