গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

বাঁশের তৈরি পণ্য বিক্রি করে চাঁর সদস্যের সংসার চালান পরিমল।

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৫ দিন ১২ ঘন্টা ২৭ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 575
...

মোঃ আমিরুল ইসলাম, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ)প্রতিনিধিঃ বাঁশের তৈরি পণ্য বাঙালির পুরোনো ঐতিহ্য। পুরোনো এই ঐতিহ্য দিন দিন হারিয়ে যেতে বসেছে। কিন্তু পূর্ব পুরুষের এই পেশাকে এখনো ধরে রেখেছেন সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার গাঁড়াদহ ইউনিয়নের বাজার ঘাটি গ্রামের একটি পরিবার। পূর্ব পুরুষদের এই ঐতিহ্যকে টিকিয়ে রাখতে তারা এখানো তৈরি করছেন ঝুড়ি, ডালা, কুলা, চালুনি,খালুই, হাতপাখাসহ নানা পণ্য। সরেজমিনে দেখা যায়, নিভৃত পল্লী অঞ্চল বাজার ঘাটি গ্রামের একই পরিবারের স্বামী-স্ত্রী বাঁশের পণ্যসামগ্রী তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তাদের নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় তৈরি হয় নানা রকমের বাঁশের তৈরি পণ্য। এ সময় তাদের সঙ্গে কথা হলে জানায়, অতীতে গ্রামে–গঞ্জে বাঁশের তৈরি পণ্যসামগ্রীর কদর ছিল অনেক । এসব পণ্য শোভা পেত প্রত্যেক বাড়িতে। এছাড়া গৃহস্থালির নিত্যব্যবহার দ্রব্যাদি, ডালা, চালুন, টোভা,কুবরি,জাকাসহ অসংখ্য জিনিস আজও তৈরি করে ক্রেতাদের চাহিদা মেটানো হচ্ছে। তবে ইদানিং প্রযুক্তির ব্যবহার ও আধুনিকতার ছোঁয়ায় দিন দিন তা হারিয়ে যেতে বসেছে। বর্তমানে এ ব্যবসায় মন্দাভাব থাকায় বাঁশ শিল্পের সঙ্গে জড়িত এই পরিবারটির চলছে দুর্দিন। বিদ্যমান পরিস্থিতিতেও দৃঢ় মনোবল নিয়ে বাঁশের পণ্য তৈরি ও তা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেছেন পরিমল ৪ সদস্যের পরিবারটি। পরিবারের সদস্য হৃদয় বলেন, এসব জিনিসপত্র তৈরির প্রধান উপকরণ বাঁশ । বিভিন্ন এলাকা থেকে বাঁশ সংগ্রহ করার পর তা দা-ছুড়ি দিয়ে তা চিরানো হয়। পরে বাঁশগুলো পণ্যের মানভেদে চিকন আকারের শলা বা বেতি তৈরি করে রোদে শুকাতে হয়। এরপর বানানো হয়ে থাকে নানা দ্রব্যসামগ্রী। এ কাজটি তার বাপ-দাদার আমল থেকে করে আসছেন। তবে পুঁজি থাকলে এই পেশায় স্বাবলম্বী হওয়া যেতে পারে। পরিমলের স্ত্রী দিপু দাশ জানান,আমরা স্বামী-স্ত্রী এই কাজের সঙ্গে জড়িত। বাঁশের তৈরি করা পণ্যসামগ্রীগুলো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের কাছে পাইকারিতে ও স্থানীয় হাট-বাজারে খুচরা বিক্রি করা হয়। যা বিক্রি করে প্রতি মাসে খরচ বাদে লাভ হয় প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। তিনি আরও বলেন, সরকারি ও বে-সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের আর্থিকভাবে সহায়তা পেলে বাঁশ শিল্পের সোনালি দিন ফিরিয়ে আনা সম্ভব। বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাঁশ দিয়ে তৈরি পণ্যসামগ্রীর দাম। কুলা ১০০-১১০ টাকা, চালুন ১০০-১২০ টাকা,কুবরি ১৩০-১৫০ টাকা,টোভা ১৪০-১৬০ টাকা,মাছের জাকা ২০০-২২০ টাকা, খুচরা মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে। গাঁড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, এটি একটি লাভজনক পেশা। বাঁশ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে এই পেশার সঙ্গে জড়িতদের নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা গ্রহণ করা দরকার।

...
Md. Amirul Islam
01673073792

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ