গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

লামা ভূমি অফিসের অনিয়ম দর্নীতি (এপিসোড_৩)

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১১ দিন ১১ ঘন্টা ২৪ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 335
...

স্ট্যাফ রিপোর্টার: লামা ভূমি অফিস দালালদের আখড়ায় পরিনত হয়েছে। ভূমি অফিসে ঘুষ ছাড়া কাজ করা যেন, অসাধ্য ব্যপার। সাম্প্রতিক সময়ে লামায় অনিয়মে ভরা সরকারি অফিসগুলোর অন্যতম হচ্ছে ভূমি অফিস। এ নিয়ে আজ ৩য় পর্বে থাকছে, ভূমি অফিসের অফিস সহকারী মোরশেদ আর চেইনম্যান নজরুলের দুর্নীতি ও সেবার নামে প্রজাদেরকে হয়রানি করার বিষয়। ঘুষ ছাড়া এই অফিসে কোন সেবা পাওয়া দুরূহ। দুর্নীতিবাজ ঘুষখোর কর্মচারী ও দালাল চক্রের দৌরাত্ম্যে সেবা প্রার্থীরা রীতিমত অসহায় এই অফিসে। এখানে পিয়ন থেকে কেরানী, চেইনম্যান সবাই যেন টাকা কামানোর নেশায় উম্মাদ। দুর্নীতি চলছে অনেকটা প্রকাশ্যে। সেবা প্রার্থীরা সরাসরি ভূমি সংক্রান্ত পরিসেবা নিতে পারছেন না ৷ দালালদের খপ্পরে ফেলতে বাধ্য করে অফিসসহকারী। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, লামায় কিছু দিন পর পর এসিল্যান্ড বদলী হয়। নতুন এসিল্যান্ডগন কয়েক মাস দায়িত্ব পালনকালে অফিস সহকারীর দুর্নীতি বুঝে উঠার আগেই বদলী হয়ে যায়। মূলত: এ ভাবে চলতে থাকায় অফিস সহকারী, পিয়ন, চেইনম্যান সবাই সেবা প্রার্থী প্রজাদের ঠেকিয়ে টাকা কামানোর সুযোগ পেয়ে যায়। ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘসূত্রিতা এড়াতে গিয়ে ভুক্তভোগীরা ভয়ে অভিযোগ করেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, মিউটেশন বা নামজারী মামলার প্রতিটি ফাইল থেকে এল আর ব্যতিত অফিসসহকারী নেয় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা। যত তাড়াতাড়ি টাকা আসবে, তত তাড়াতাড়ি ফাইল যাবে(!)। এ ছাড়া অফিসিয়াল ত্রুটি বা কোনো কারণে ফাইল জেলা থেকে ফেরৎ আসলে, তা সংশোধন করে পাঠাতে পুনরায় ৫ হাজার টাকা দিতে হয়, অফিস সহকারীকে। অন্যথায় ফাইল চাপা পড়ে যায় বহু কাগজের নীচে। এ ধরনের বেশ কয়েক জনের আপত্তি রয়েছে। উদাহারণ হিসেবে দুটি নামজারী ফাইলের উল্লেখ করা যায় যে, মামলা নং ২/২০২২ অফিস সহকারীর তফশিলে ভুল করে। এভাবে ফাইলটি তিন দফে ভুল করে। তৃতীয় দফে ভুল করায়, ফাইল জেলা থেকে এখন পুনরায় লামার পথে রয়েছে। এ ছাড়া ২৮/২০২২ নং আরো একটি নাজারী ফাইল শ্রেণি ভুল করায় ফেরৎ আসে। সংশোধন করে পুনরায় বান্দরবান গিয়ে ফাইলটি আটকে আছে। মনোনীত দালালদের মাধ্যমে ঘুষের টাকা নেয়া হয়, অফিস ভাউন্ডারির বাহিরে কোনো দোকান বা নির্জনস্থানে। সেবা প্রত্যাশি সাধারণ মানুষ ভয়ে প্রতিবাদ বা অভিযোগ করছেন না। অনুসন্ধানে জানাযায়, অফিস সহকারীর চাহিত টাকা দিতে ব্যর্থ হলে ৭-৮ মাস ফাইল আটকে রাখে। শুধু তাই নয়, ফাইলটি হারিয়ে যায় বা কাগজপত্রাদির নানা ত্রুটি বিচ্যুতি জনিত কারণ দেখিয়ে হয়রানি করে। ভুক্তভোগীরা জানায়, একেকটি ব্যাংক ক্লিয়ারেন্স নিতে সেবা প্রার্থী জনগনকে গুনতে হয় কম করে দেড় হাজার টাকা। এর কম হলে ব্যাংক ক্লিয়ারেন্স এর কার্যক্রম করে না ভূমি অফিস সহকারী। এ ব্যাপারে বান্দরবান জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হলে, তিঁনি ব্যবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছিলেন। এদিকে অফিস সহকারী মোরশেদ এসব অনিয়মের কথা অস্বীকার করে।সে জানায়, তার কর্ম দক্ষতায় উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ সন্তষ্ট। সে লামা ভূমি অফিসে বিগত ২০১২ সালে যেভাবে মিথ্যা ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলেন, এবারও ঠিক একই অবস্থা। সে আরো জানায়, "আমি যতই ভাল কাজ করিনা কেন, আমার বিরুদ্ধে কয়েকজন ষড়যন্ত্র করে যাবে। এ ব্যপারে কর্তৃপক্ষ তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নিবেন, এমনটা মোরশেদ প্রত্যাশা করছেন এবং সেবা প্রত্যাশি মানুষও সেটা চায়। অন্যদিকে চেইনম্যান নজরুল কানুনগো সার্ভেয়ারের সাথে মাঠ কোন তদন্তে গেলে পান্ডিত স্বভাব প্রকাশ পায়। সাধারণ মানুষ এসব দেখে, তাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা মনে বলে অনেকে জানান। ইয়াংছার এক নারী থেকে পাঁচ হাজার টাকা নেয় চেইনম্যান নজরুল। কথা ছিল নারীর পক্ষে কানুনগো রিপোর্ট করিয়ে দিবে। কিন্তু রিপোর্টটি সেই নারীর পক্ষে না হওয়ায়, ক্ষুব্দ নারী এর প্রতিকার চেয়েছেন। এই ব্যপারে বৃহস্পতিবার সন্ধায়, কথা হয় সহকারী কমিশনার (ভূমি) লামা এর সাথে। তিঁনি সবগুলো বিষয় নোট করে নিয়েছেন এবং তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে সুপারিশ করবেন বলে জানান।

...
Muhammad Masudul Haque
01918161881

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ