গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

আফতাব নগরে শ্রমিকদের নিরাপত্তা ঝুঁকি নিয়ে নির্মিত হচ্ছে শতাধিক ভবন

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ৯ দিন ১ ঘন্টা ০ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 1420
...

 


মোঃ রিপন হাওলাদার/দেলোয়ার হোসেন: রাজধানীর বাড্ডা আফতাব নগর জহুরুল ইসলাম সিটি ও ইস্টার্ন হাউজিং প্রকল্পের বিভিন্ন ব্লকে শ্রমিকদের নিরাপত্তা ঝুঁকি নিয়ে নির্মিত হচ্ছে বহুতল ভবন। জহুরুল ইসলাম সিটির সি ব্লক হতে ইস্টার্ন হাউজিং প্রকল্পের এম- ব্লক পর্যন্ত প্রায় শতাধিক বহুতল ভবনের নির্মাণ কাজ চলছে।এসব নির্মাণাধীন ভবনগুলোর নেই কোন প্রকার সাইট নিরাপত্তা বেষ্টনী। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে নির্মাণ শ্রমিকরা। নেই ইমারত তদারককারী প্রতিষ্ঠানের কার্যকরী নজরদারি। প্রতিটি এলাকায় ইমারত পরিদর্শক থাকলেও তাদের উদাসীনতায় ইমারত বিধিমালা অমান্য করে নির্মাণ কাজ করে যাচ্ছে এসব বহুতল ভবনগুলোর মালিকরা। নির্মিত ভবনগুলোর নির্মাণ কাজ করা শ্রমিকরা যেমন জীবনের চরম ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে,তেমনি  নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন পথচারীরা।আর প্রায় নিরাপত্তা জনিত দূর্ঘটনায় অকাল প্রাণহানি ঘটছে নির্মাণ শ্রমিকদের।গত ১৩ ডিসেম্বর ২১ ইং তারিখ  ইস্টার্ন হাউজিং আফতাব নগর প্রকল্পের ২ নং সেক্টরের এম ব্লকের ২ নম্বর সড়কের ৩০ নং প্লটে নির্মাণাধীন ভবনের ৬তলার ছাঁদ থেকে পড়ে আব্দুস সালাম নামে এক নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু হয়। ঘটনার খবর পেয়ে কয়েক জন সংবাদ কর্মী ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা নিশ্চিত হতে গিয়ে দেখতে পায় ভবনটির কোন ধরনের সাইট নিরাপত্তা বেষ্টনী ছিলো না। বিষয়টি ইমারত তদারককারী প্রতিষ্ঠান (রাজউক)এর আঞ্চলিক অফিস মহাখালী কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট এলাকার দায়িত্বে থাকা পরিচালককে লিখিত ভাবে অবগত করা হয়েছিলো।এর আগে ইমারত পরিদর্শককে মৌখিক ভাবে জানানো হয়।এর কয়েকদিন পর ইমারত পরিদর্শকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি নিজে সাইটে গিয়েছি এবং তাদেরকে বিধিমতে  চুড়ান্ত নোটিশ দিয়েছি।তারা নির্মাণ বিধি অনুযায়ী সাইট নিরাপত্তা বেষ্টনী না দিয়ে কোন প্রকার নির্মাণ কাজ করতে পারবে না। এর দুদিন পর সেই স্থানে গিয়ে দেখা গেলো ভবনটির দুপাশে দুটি নেট ঝুলছে আর শ্রমিকরা পূর্বের মতো নির্মাণ কাজ করছে।এরপর আবার সেই পরিদর্শকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি একাধিক নোটিশ দিয়েছি তারা না মানলে আমি কি করতে পারি। তাহলে কি?পরিদর্শকের এই কথার মধ্যেই দায়বদ্ধতা শেষ।ইমারত বিধি ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে বিধি মতে আর কিছুই করার নেই। ইমারত নির্মাণ বিধিমালার কার্যকারিতা এতোটুকু সেটা হয়তো প্রতিবেদকের মতো পাঠকের মনেও গুড়পাক খাচ্ছে। পরিদর্শকের কাছে ইস্যু করা নোটিশের ছায়া কপি বা স্মারক নাম্বার চাইলে তিনি দিতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন।তার মতো জহুরুল ইসলাম সিটির সি ব্লকের দায়িত্বে থাকা ইমারত পরিদর্শক সাইফুল এর সাথে একটি নির্মাণাধীন ভবনের বিষয় নিয়ে যোগাযোগ করি। বহুতল ভবনটির নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের দিকে সেই ভবনটিতেও কোন সাইট নিরাপত্তা বেষ্টনী নেই। ঝুঁকি নিয়ে শ্রমিকরা উপরে নির্মাণ কাজ করছে আর নিচ দিয়ে পথচারীরা হেঁটে যাচ্ছে। তার কাছে এসব নিয়ে কথা হলে ভবনটির মালিক একজন বড় সরকারী কর্মকর্তা বলে তার দায় সাড়েন। তাহলে একজন হলেন সরকারি বড় কর্মকর্তা আর একজন আইন মানছে না এই হলো পরিদর্শকদের সর্বোচ্চ কার্যক্ষমতা।নাকি বিধি ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে পরিদর্শকদের স্বার্থ চরিতার্থ করতে ইমারত আইনের সঠিক প্রয়োগ করতে পরিদর্শকদের অনিহা।গত ৫-১-২২ ইং তারিখ জোন- ৪ এর পরিচালক মকসুদুল আরেফিন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা বিধি অনুযায়ী যথযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি। তার বক্তব্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আগ্রহ দেখা গেলেও,বাস্তবে কোন ধরনের কার্যকরী ব্যবস্থা চোখে পড়ে না। প্রাণহানি ঘটা সেই ভবনের মালিক গোলাম ফারুক খান এর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,রাজউক কোথায় চিনি না নির্মাণ অনুমোদন অন্য একজনের মাধ্যমে করিয়েছি।আর সাইট নিরাপত্তা এই এলাকায় দরকার হয় না কেউ দেয় না তাই দেইনি।

...
Md Ripon Howlader
01988625536

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ