+

ফেনীতে করোনা টেস্ট ও শনাক্ত দুটোই কমেছে

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৩ দিন ১১ ঘন্টা ২১ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 700
...

ফেনী জেলায় করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ ও শনাক্তের সংখ্যা দুটোই কমেছে। জেলায় করোনার বিস্তার রোধে বেশি পরীক্ষা ও দ্রুত ফল পেতে জীন এক্সপার্ট মেশিন স্থাপন করা হলেও নমুনা পরীক্ষায় দিনদিন সাধারণ মানুষের আগ্রহ কমেছে।সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার ঘোষিত টানা ৬৬ দিনের ছুটি শেষে ১ জুন স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী অফিস আদালত ও সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালু হয়। এপ্রিল থেকে ৩১ মে পর্যন্ত জেলায় ১৮৩ জন করোনায় সংক্রমিত হলেও জুন মাসেই চারগুণ বেশি রোগী শনাক্ত হয়। এরপর জুলাই থেকে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত ক্রমেই নমুনা সংগ্রহের পরিমাণ অর্ধেকে নেমে এসেছে। সেই সাথে কমেছে শনাক্তও।জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র জানায়, চলতি মাসের ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত শুধুমাত্র ৪১৮ ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ হয়েছে। এর মধ্যে শনাক্ত হয়েছেন ৫৩ জন।পরিসংখ্যান বলছে, গত ৮ মার্চ দেশে করোনা শনাক্তের পর এপ্রিল মাস থেকে জেলায় নমুনা সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথম মাসে ৩শ ৪৩ জনের নমুনা শনাক্ত হয়েছেন ৩ জন। পরবর্তী মে মাসে ১ হাজার ২শ ৯৯ ব্যক্তির নমুনায় শনাক্ত হয়েছেন ১শ ৮০ জন। জুনে প্রকৌপ বেড়ে গেলে ৩ হাজার ২শ ৭২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই মাসে ৭শ ১ জনের শরীরে করোনার অস্তিত্ব মেলে। জুলাই থেকেই কমতে থাকে নমুনা ও শনাক্তের সংখ্যা। জুলাইয়ে ১ হাজার ৮শ ৪৭ জনের নমুনা সংগ্রহ ও শনাক্ত হয় ৩শ ৬২ জনের, আগস্টে ১ হাজার ৫শ ৮ জনের নমুনা সংগ্রহ ও ৩শ ৪৯ জনের শনাক্ত এবং সেপ্টেম্বর মাসে ১ হাজার ৬শ ২৭ জনের নমুনা সংগ্রহ ও ১শ ৬৬ জনের শনাক্ত হয়। চলতি মাসের দুই সপ্তাহে ৪শ ১৮ জনের নমুনা সংগ্রহ ও ৫৩ জনের শনাক্ত হয়। এদের মধ্যে সিভিল সার্জন ডা: সাজ্জাদ হোসেন সহ জেলাজুড়ে আক্রান্ত হয়ে ৪০ জন মারা গেছেন।শুরু থেকে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) তে প্রেরণ করা হয়। এরপর পরীক্ষা জট কমাতে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে সংযুক্ত হয়। কিছুদিন পর নোয়াখালী আবদুল মালেক মেডিকেল কলেজে পিসিআর ল্যাব স্থাপন হলে পরীক্ষা হয় এখানে। সবশেষ গত সেপ্টেম্বরে শহরের মহিপাল বক্ষব্যাধি ক্লিনিকে জিন এক্সপার্ট মেশিন চালু হয়। বর্তমানে নোয়াখালী ও মহিপাল বক্ষব্যাধি ক্লিনিকেই নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।এদিকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালের করোনা নিয়ন্ত্রন কক্ষ থেকে জানা গেছে, জেলা সদরের হাসপাতালটিতে উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ইউনিটে ৮শ ৩০ জন ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছিলেন। এর মধ্যে ১শ ১৪জন মারা যান। করোনা পজেটিভ ছিলেন ৫ জন। গত মার্চ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৩ হাজার ৫শ ৭৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হলে ৩শ ৬৭ জনের পজেটিভ হয়।ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: ইকবাল হোসেন জানান, আইসোলেশন ইউনিটে ১৬ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে একজন করোনা পজেটিভ। গতকাল আইসোলেশন থেকে ৩ জনকে ছুটি দেয়া হয়েছে। এছাড়া বহির্বিভাগে এখন প্রতিদিন গড়ে অর্ধশত রোগী আসছেন। এসব রোগীর মধ্যে প্রায় অর্ধেকই সর্দি-কাশি-জ্বরে আক্রাান্ত। চিকিৎসকরা করোনা পরীক্ষার পরামর্শ দিলেও রোগীরা তাতে গুরুত্ব দেননা।জেলা করোনা নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ফোকাল পার্সন ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা: শরফুদ্দিন মাহমুদ জানান, গতকাল নতুন করে ৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৯শ ২৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ১ হাজার ৭শ ১০ জন সুস্থ হয়েছেন।জানতে চাইলে সিভিল সার্জন ডা: মীর মোবারক হোসেন দিগন্ত বলেন, আক্রান্তের সংখ্যা কমে যাওয়ায় মানুষের মধ্যে সচেতনতাও কমে গেছে। ফলে নমুনা সংগ্রহ কম হচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনাক্রমে ‘নো মাস্ক-নো সার্ভিস’ নীতি গ্রহণ করা হচ্ছে। বিয়ে, সামাজিক আচার-অনুষ্ঠান কিংবা যেকোন জনসমাগম কিভাবে এড়ানো যায় সেই লক্ষ্যে প্রশাসনের সাথে বৈঠক করে করণীয় নির্ধারণ হবে। কিছুদিনের মধ্যে প্রচার-প্রচারণাও শুরু হবে।

...
Md. Saiful Islam(SJB:E525)
Mobile : 01558813552

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন
01868974512

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ