১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:২২

ত্রিপুরা পল্লীর আরও এক গৃহবধুকে হাসপাতালে ভর্তি

::মো.আলাউদ্দীন,হাটহাজারী(চট্টগ্রাম)::

হাটহাজারীর ত্রিপুরা পল্লীর মনি ত্রিপুরা(২৪)নামের এক গৃহবধুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ০৬ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ছয়টা ত্রিশ মিনিটের দিকে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে ভর্তি মনি ত্রিপুরা ঐ পল্লীর সোনাই পাড়ার লক্ষী চরন ত্রিপুরার স্ত্রী বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। গত কয়েকদিন পূর্বেও সর্তা ত্রিপুরা(২৯)নামের এক গৃহবধুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডস্থ দক্ষিন উদালিয়ার ত্রিপুরা পল্লীর সোনাইপাড়ার গৃহবধু মনি ত্রিপুরা ডায়রীয়া আক্রান্ত হয়, পরে তার স্বামী লক্ষী চরন ত্রিপুরা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার রোগীর অবস্থা দেখে হাসপাতালে ভর্তি করে নেন। একই দিন সকালের দিকে প্রচন্ড জ্বরের কারনে ত্রিপুরা পল্লীর বিশু কুমার ত্রিপুরার সন্তান ভুবন ত্রিপুরা(১৪)কে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসলে তাকেও হসপাতালে ভর্তি করে নেন দায়িত্বরত চিকিৎসক । এদিকে গত মঙ্গলবার(৪ সেপ্টেম্বর)বেলা সাড়ে এগারটার দিকে ঐ পল্লীর স্বপ্না ত্রিপুরা নামের এক বছর বয়সী এক শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল এবং সোমবার(৩ সেপ্টেম্বর)দুপুরের দিকে সর্তা ত্রিপুরা(২৯)নামের এক গৃহবধুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দ্রুত চমেক হাসপাতালে প্রেরন করেন। অপরদিকে ভর্তি হওয়াদের মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে গত মঙ্গলবার বিকালে ছাড়পত্র দেয়া হলে ৫ জন রোগী সুস্থ হয়ে ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডস্থ দক্ষিন উদালিয়ার সোনাইরকুলের ত্রিপুরা পল্লীর নিজ বাড়ীতে ফিরে যায় বলে জানা গেছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু সৈয়দ মোহাম্মদ ইমতিয়াজ হোসাইন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া প্রায় রোগী সুস্থ হয়ে তাদের বাড়ী ফিরে গেছে,বর্তমানে সন্ধ্যায় ভর্তি হওয়া মনি ত্রিপুরা সহ মাত্র ৬ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি আছে। এদের মধ্যে বৃহস্পতিবার ভর্তি হওয়া ২ জন রোগী বাদে বাকী ৪ জনের অবস্থাও এখন আগের চেয়ে অনেক ভাল। হয়তো ২/১ দিনের মধ্যে সবাইকে ছাড়পত্র দেয়া সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত,উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডস্থ দক্ষিন উদালিয়ার ত্রিপুরা পল্লীর সোনাই পাড়াতে হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে গত রবিবার ২৬ আগস্ট সকালে অন্ন বালা ত্রিপুরা(৭), ২৪ আগস্ট শুক্রবার সম রায় ত্রিপুরা(৩) এবং মঙ্গলবার ২১ আগস্ট একই দিনে অন্ন রায় ত্রিপুরা(৫) ও কিশা মনি ত্রিপুরা(৩)নামের দুই শিশু সহ মোট চারজনের মৃত্যু হয়েছিল।

প্রকাশ :  সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮ ২:৫৯ অপরাহ্ণ