২০শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং | ৮ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | রাত ১২:১৬
ব্রেকিং :

ফরিদপুরে দৈনিক সরেজমিন পত্রিকার সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকী, থানায় জিডি

আনিচুর রহমান, ফরিদপুর থেকে :

আমি মোঃ আনিচুর রহমান, জাতীয় দৈনিক সরেজমিন পত্রিকার ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি। আমার মাধ্যমে গত ১৮ নভেম্বর, ২০১৮ ইং তরিখ রোজ রবিবার দৈনিক সরেজমিন পত্রিকায় “ফরিদপুর সিভিল সার্জন অফিসের স্যানিটারী ইন্সপেক্টর খাদ্য লাইসেন্স নবায়নের নামে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা” শিরোনামে সংবাদটি প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদ প্রকাশের পর কথিত দুর্নীতিবাজ কর্মচারী জেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর বজলুর রশিদ খান ও সদর উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর আবুল কালাম আজাদ বিভিন্ন মহল থেকে ফোনে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ প্রকাশ করতে নির্দেশ করেন। এ বিষয়ে আমার কাছে ভিডিও ফ্রুটেজসহ যথেষ্ট দুর্নীতির প্রমাণ আছে। তাদেরকে প্রতিবাদ ছাপানোর বিষয়ে আমি অস্বীকার করি। সংবাদ প্রকাশের পর থেকেই ফোনে এবং ফরিদপুর সিভিল সার্ভিস অফিসের সামনের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে সংবাদ নিয়ে বাড়াবারি না করার জন্য হুকমী-ধামকী দেয়। উল্লেখ্য যে, গত ০১/১২/২০১৮ ইং তারিখে সম্ভাব্য সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটের সময় ফরিদপুর রাজেন্দ্র কলেজ মাঠ বানিজ্য মেলা থেকে ফেরার পথে ফরিদপুর সিভিল সার্জন অফিসের সামনে দিয়ে মটরসাইকেল যোগে যাওয়ার সময় আমাকে পথ রোধ করে জেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর বজলুর রশিদ খান , কমিউনিটি হেলথ প্রোভাইডর মোঃ রেজাউল করিম মোল্লা, প্রধান সহকারী সিভিল সার্জন অফিস মোঃ সেলিম মিয়া। তারা বলেন এই সংবাদটির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ছাপাতে হবে, না ছাপালে হাত-পা কেটে দিব বলে জীবন নাশের ভয়-ভীতি প্রদর্শন করেন। এই ঘটনার পরদিন আমি ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেছি। যাহার জিডি নং-১৪৫, তারিখ: ০২/১১/২০১৮ইং। এই ঘটনার পর থেকে উক্ত অফিাসের আরো দুর্নীতির বিষয়ে খতিয়ে দেখতে বাঁধাগ্রস্থ হই।

প্রকাশ :  ডিসেম্বর ৫, ২০১৮ ৫:৩২ অপরাহ্ণ