১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:৪৩

নাটোর ৪ আসন অভূতপূর্ব উন্নয়ন করায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে এমপি আব্দুল কুদ্দুস

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি :

নাটোর ৪ (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম) আসনে অভূতপূর্ব উন্নয়ন করায় ও দলকে অতীতের চেয়ে শক্তিশালী করায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আব্দুল কুদ্দুস (বর্তমান এমপি) জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন বলে একাধিক সুত্রে জানা গেছে। নাটোর ৪ গুরুদাসপুর ও বড়াইগ্রাম উপজেলা নিয়ে এ আসনটি গঠিত। এ আসনে ১৩টি ইউনিয়ন ও ৩টি পৌরসভা রয়েছে। নাটোর ৪ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৮৩ হাজার। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নাটোর ৪ (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম) আসনে ইতিমধ্যে ব্যাপক প্রচার-প্রচারনা শুরু হয়েছে। চা দোকানে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে চুলছেড়া বিশ্লেষণ।

সুত্রে জানা যায়, ১৯৯১ সালে অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম বারের মত নৌকা প্রতিক নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সরকারী ভাবে তিনি ৪বার এ আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছেন। স্থানীয় আওয়ামীলীগের দলীয় নেতারা দাবি করেন, ১৯৮৬ সালে তৎকালীন এরশাদ সরকারের সময়ে আব্দুল কুদ্দুস জয়লাভ করার পরও তাকে বিজয়ী ঘোষনা না করে আবুল কাশেমকে বিজয়ী ঘোষনা কিরেছিলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতায় ১০ বছরে এলাকার বিভিন্ন মুখী উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন অব্যাহত রাখায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষের নিকট একজন যোগ্য এমপি হিসাবে আস্থা অর্জন করেছেন। নাটোর ৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল কুদ্দুস এমপির বাস্তবায়নকৃত কর্মকান্ডের মধ্যে দুই উপজেলার ১ লক্ষ ১৮ হাজার পরিবারে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় এনেছেন। দুই উপজেলায় ১৯৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১০২টি হাইস্কুল, ৬১টি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি। ৩ হাজার ১শ কিলোমিটার রাস্তা, ২টি ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন, ২টি স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের ভবন, বহু ব্রীজ-কালভার্ট নির্মান করা করেছেন। অনেক প্রকল্প অনুমোদন প্রক্রিয়ায় রয়েছে বলে এমপি আব্দুল কুদ্দুস জানায়। প্রতিটি জনসভায় নিজেকে দলীয় প্রার্থী হিসাবে আব্দুল কুদ্দুস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া চেয়ে নৌকা মার্কায় ভোট চাচ্ছেন। দলীয় নেতা কর্মিরা সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের তালিকা সম্বলিত লিফলেট ৪ আসনের প্রতিটি হাট-বাজার, প্রতিষ্ঠান ও অফিসে বিতরণ করে চলেছেন। বন্যাদূর্গত এলাকা গুলোতে সরকারী ত্রান তৎপরতার পাশাপাশি আব্দুল কুদ্দুস দলীয় কর্মী বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে দিবারাত্রি বানভাসি পরিবার গুলোকে খাদ্য বস্ত্র সহ প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করেন। বানভাসি ভাইদের কথা বিবেচনা করে খাদ্য মন্ত্রী মহাদয়কে এলাকা নিয়ে এসেছিলেন। আক্যসিক দূযোর্গ, দূর্ঘটনা কবলিত স্থানে দ্রুত পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় সু-ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করেছেন।

জাতীয়, দলীয়, ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদী এবং দরিদ্র পরিবারের বিবাহ সাদি গুলোতে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করাতে এমপি আব্দুল কুদ্দুসের জনপ্রিয়তা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ছাড়াও ভোট কেন্দ্র ভিত্তিক আওয়ামীলীগ সহ সহযোগি সংগঠনের সদস্য নিয়ে শক্তিশালী কমিটি গঠন, উঠান বৈঠক, প্রতিটি ইউনিয়নে সভা সমাবেশে নারী পুরুষের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহন করায় দলীয়-কর্মি বাহিনী উজ্জেবিত হয়েছে। আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড জনগণের কাছে তুলে ধরার জন্য সত্যিই আব্দুল কুদ্দুসের যোগ্য নেতৃত্বের প্রমান রাখেন। নির্বাচনের আগে এসব উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্ধোধন করে প্রত্যেকটি ইউনিয়নে জনসভা করে সরকারের সফলতার কথা সাধারন মানুষের কাছে পৌছে দেওয়ায় আওয়ামীলীগ সরকারের ব্যাপক জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে। বড়াইগ্রাম উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাড. মিজানুর বলেন, অভূতপূর্ব উন্নয়ন করায় নাটোর ৪ আসনের এমপি আব্দুল কুদ্দুস জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন। উল্লেখিত উন্নয়ন কার্যক্রম দেখে ঈর্ষানিত হয়ে এবং এমপি সাহেবের কাছ থেকে বাড়তি সুবিধা না পেয়ে কিছু অনুপ্রবেশকারী নেতা শলাপরামর্শ করে এমপি সাহেবের বিরুদ্ধে নানাসব বানোয়াট অভিযোগ তুলে ধরে তাকে মনোনয়ন না দেওয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। অথচ নাটোর ৪ আসনের দুই উপজেলা, পৌর সভা, ইউপি চেয়ারম্যান বৃন্দ, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগ সহ সহযোগী সংগঠনের সব ৯০ ভাগ নারী পুরুষের স্বতঃস্ফুর্ত দাবী আব্দুল কুদ্দুসকে মনোনয়ন দেয়ার পক্ষে। তিনি আরো বলেন, আব্দুল কুদ্দুস ছাড়া এ আসনে নৌকার বিজয় অনিশ্চত। অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুসের বিকল্প আব্দুল কুদ্দসই।

এ আসনে আব্দুল কুদ্দুস ছাড়াও নৌকার মনোনয়ন চাচ্ছেন, বাংলাদেশ যুবমহিলালীগের সহ সভাপতি এ্যাড. কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও পৌর মেয়র, শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা, বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ও নাটোর জেলা আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আহম্মদ আলী মোল্লা।

প্রকাশ :  অক্টোবর ৩০, ২০১৮ ২:৪৫ অপরাহ্ণ