১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:৩৬

ডোমারে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

নীলফামারী প্রতিনিধি :

নীলফামারীর ডোমারে বামুনিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ময়বুল ইসলাম (মিষ্টারের) বিরুদ্ধে একই বিদ্যালয়ের দুই প্রতিবন্ধি ছাত্রীর প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে ।
অভিযোগ সূত্রে জানাযায়,মৌজা বামুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা দশরত রায়ের মেয়ে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী প্রতিবন্ধি সুমিত্রা রানী ও খামার বামুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা রাম দুলাল রায়ের মেয়ে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী প্রতিবন্ধি মুন্নি রায় বিগত ২০১৬ সালে উপজেলা সমাজ সেবা অফিস হতে প্রতিবন্ধি ভাতার তালিকা ভুক্ত হয় ।২০১৬ সালে বামুনিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ময়বুল ইসলাম মিষ্টার চালাকি করে দুই ছাত্রীর প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তির টাকা ব্যাংক হতে উত্তোলন করে আত্মসাত করে । দ্বিতীয় দফায় ২০১৭ সালের প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তির টাকা ২০১৮ সালের ২৪সেপ্টেম্বর নিজের মেয়ে মিসকাতুন কে সুমিত্রা রানী সাজিয়ে কৌশলে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসে প্রত্যায়ন পত্র জমা দিয়ে প্রতিবন্ধি শিক্ষা উপবৃত্তির চেক গ্রহন করে ডোমার সোনালী ব্যাংক হতে সুমিত্রা রানীর (৭২০০) সাত হাজার দুইশত টাকা উত্তোলন করে সুমিত্রার হাতে (২০০০)দুই হাজার টাকা দেওয়া হয় । অপর প্রতিবন্ধি ছাত্রী মুন্নি রায়কে দিয়ে তার চেকে স্বাক্ষর নিয়ে উপজেলা চত্তরে বসিয়ে রেখে প্রধান শিক্ষক নিজে গিয়ে ব্যাংক থেকে (৭২০০)সাত হাজার দুইশত টাকা উত্তোলন করে (১২০০)টাকা মুন্নির হাতে দিয়ে অবশিষ্ঠ টাকা আত্মসাত করেন ।
বিষয়টি জানাজানি হলে ও এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হলে দুই প্রতিবন্ধি ছাত্রীর অবিভাবকদ্বয় জানতে পেরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করে এ ব্যাপারে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসের বামুনিয়া ইউনিয়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত ইউনিয়ন সমাজ কর্মী প্রভাত চন্দ্র জানান,বামুনিয়া বালিকা দ্বি মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ময়বুল ইসলাম মিষ্টার তাহার দুই প্রতিবন্ধি ছাত্রীর প্রত্যায়ন পত্র জমা দিয়ে চেক গ্রহন করেন ।
ডোমার সমাজ সেবা অফিসার ফরহাদ হোসেন মুঠোফোনে কথা হলে জানান,লিখিত অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রমানিত হলে তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রকাশ :  অক্টোবর ৮, ২০১৮ ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ