গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

পার্বত্য লামা-আলীকদমে "শান্তি বাহিনী নির্মুলে মুরুং বাহিনীর বীরত্বের ইতিহাস "মনে রবে কি রবে না আমারে" এপিসোড-১৩

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৯ দিন ২০ ঘন্টা ১২ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 275
...

মোঃ কামরুজ্জামান, লামা-আলীকদম(বান্দরবান): পার্বত্য লামা-আলীকদমে "শান্তি বাহিনী নির্মুলে মুরুং বাহিনীর অবদান" এক ইতিহাসের নাম। ধারাবাহিক প্রতিবেদনে আজকে রয়েছে, মুরুং মুরুং বাহিনী কমান্ডার পালে মুরুং এর কাছে শুনা মুরুংদের বঞ্চিত হওয়ার কাহিনী। ১৯৮৫ সাল, উত্তাল পার্বত্য চট্টগ্রাম। পাহাড়ি জেএসএস সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা মরিয়া হয়ে উঠে।খুন, গনহত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, লুটতরাজ, চাঁদাবাজি চলতে থাকে। তৎতসময় লামা-আলীকদমেও তিন জেলার বিভিন্ন এলাকার ন্যয় সন্ত্রাসীদের হীংস্র আছড় লাগে। অন্যান্য এলাকায় তাদের বর্বরচিত হামলার টার্গেট শুধু বাঙ্গালীরা ছিল। কিন্তু লামা-আলীকদমে বিশেষ করে মাতামুহুরী রিজার্ভ অঞ্চলে মুরুং সম্প্রদায়ের লোকেরা, চাকমা সন্ত্রাসীদের শিকারে পরিনত হয়। এই অঞ্চলে তখন জেএসএস সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে বাহিনী গঠন করে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মুরুংরা। প্রথমে স্বজাতি রক্ষার সংগ্রাম শুরু করলেও পরে নিরাপত্তা বাহিনীর সম্পুরক হয়ে ঝাপিয়ে পড়েন মুরুং বাহিনী। দা আর লাঠিদ্বারা সংগ্রামের মাধ্যমে কিছুদিন পর পরিস্থিতি শান্ত হয়। তবে সে সময় সংঘাতময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সরকারিভাবে তাদের মূল্যায়নও ছিল। ৯০'র দশক পর্যন্ত তাদের স্বীকৃতি সুনাম ছিল। এর পর দীর্ঘ দু' দশক পর, তারা এমনটা বলছেন যে, " আমরা আমাদের সন্তানদের জন্য লামা-আলীকদম, দক্ষিণ বান্দরবানে বাসযোগ্য একটি ভূমি রেখে যেতে ব্যর্থ হয়েছি। আমাদের স্বপ্ন ছিল একটি গণতান্ত্রিক উপায়ে বৈষম্যমুক্ত সমাজ গড়ার। কিন্তু সেই স্বপ্ন স্বপনই থেকে গেল। এই অঞ্চলে মুরুংদের মাঝে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা বেড়ে গেছে। মুরুংরা সম্প্রাদায়গত সংখ্যা গরিষ্ঠ হওয়া স্বত্তেও, চাকুরী ও নেতৃত্বের ক্ষেত্রে সকল সুবিধা নিচ্ছে চাকমা, ত্রিপুরা, মার্মা সম্প্রদায়। রাজনীতির ছত্রচ্ছায়ায় এই অঞ্চলে বিস্তৃত ভূমিসহ কোটি কোটি টাকার মালিক হচ্ছে তারা। যার প্রমাণস্বরূপ জেলা পরিষদসহ স্থানীয় সরকারের অন্যান্য পরিষদে বিদ্যমান নেতৃত্ব"। সম্প্রতি চায়ের আড্ডায় কথোপকতনে এককালের মুরুং বাহিনী প্রধান, পালে মুরং কমান্ডার এসব অনুভূতি ব্যক্ত করেন। লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন বনপুর রাজাপাড়ার বাসিন্দা বীর পালে মুরুং কমান্ডার এখন মুমূর্ষু অবস্থায় জীবন কাটাচ্ছেন। তিঁনি জীবদ্দশায়, তাঁদের স্বপ্ন প্রদীপটি আবারো জ্বালিয়ে যেতে চায়। তাঁর এই স্বপন পুরনে এগিয়ে আসতে হবে সমাজকে। চলবে..

...
Muhammad Masudul Haque
01918161881

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ