গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত অনলাইন নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

বছরের প্রথম দিনে হাতে হাতে নতুন বই

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ২৩ দিন ২ ঘন্টা ৩৫ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 745
...

স্টাফ রিপোর্টার ॥ উৎসব হয়নি তো কি হয়েছে! বছরের প্রথম দিনই নতুন বই হাতে পেয়েছে দেশের প্রায় সব স্কুলের শিক্ষার্থীরা। তাই বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস তাদের। শুধু শিক্ষার্থী নয় উচ্ছ্বসিত শিক্ষক, অভিভাবকরাও। এ উচ্ছ্বাস উৎসবের আনন্দের চেয়ে কোন অংশেই কম নয় বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাজধানীসহ দেশের প্রায় সব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝেই শনিবার বিতরণ করা হয়েছে নতুন বই। একসঙ্গে সব বই দিতে না পারলেও অন্তত ৮০ শতাংশ বইই পেয়েছে শিক্ষার্থীরা। পর্যায়ক্রমে চলতি মাসের মধ্যেই সব বই শিক্ষার্থীরা পেয়ে যাবে বলে জানিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। কর্তৃপক্ষ বলছে, জানুয়ারিতে সব বই পৌঁছানো সাপেক্ষে ১ ফেব্রুয়ারি সব স্কুলে পাঠদান কার্যক্রম শুরু হবে।

সরেজমিনে রাজধানীর কয়েকটি স্কুল ঘুরে দেখা যায়, মধ্য পৌষের কনকনে ঠা-া বাতাস উপেক্ষা করেই শিশুরা তাদের অভিভাবকদের হাত ধরে স্কুলে এসেছে বই নিতে। রাজধানীর মগবাজারের বিটিসিএল আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ থেকে সপ্তম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হওয়া শিক্ষার্থী কে এম ওয়াহিদ নাঈম উচ্ছ্বসিত কণ্ঠে বলে, আজ নতুন বই হাতে পাব এই আনন্দে সারা রাত ঘুম আসেনি চোখে। ভোর বেলাতেই ঘুম থেকে উঠে গিয়েছি। তার বাবা সাঈদ খান বলেন, সেই ভোর থেকে স্কুলের ইউনিফর্ম পরে বসে ছিল কখন স্কুলে আসবে। করোনার কারণে এ বছর কোন আনুষ্ঠানিকতা না হলেও ছেলে নতুন বই হাতে পেয়েছে এতেই আমরা আনন্দিত। বছরের প্রথম দিনটি তাই আমাদের কাছে অন্যরকম আলো ছড়িয়ে দিল। একই কথা বলেন রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজে ৪র্থ শ্রেণী থেকে ৫ম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হওয়া শিক্ষার্থী রাফসানজানি ভূঁইয়া তনয়ের বাবা গোলাম সামদানি। ছেলের বইয়ের ব্যাগ নিজের কাঁধে নিয়েই ঘুরছেন তিনি। বলেন, এ আনন্দ প্রকাশ করার নয়। ছেলে-মেয়ে যখন নতুন শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয় তখন যেমন আনন্দ তেমনি আনন্দ হয় তাদের নতুন বই হাতে পাওয়ার পরও। আজও তেমন আনন্দ হচ্ছে। ছেলের ভবিষ্যত যেন উজ্জ্বল হয় সেই দোয়া করবেন।

উচ্ছ্বসিত রাজধানীর ইস্পাহানী গার্লস স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী নাফিসাও। নতুন বইয়ের বান্ডিল হাতে রাখে হিমশিম খেতে খেতেই বলে, করোনার কারণে অনেক স্কুলে আসতে না পারায় খুব মন খারাপ ছিল। তবে স্কুল খোলার পর বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়ে খুব আনন্দ লেগেছে। আজ আবার নতুন বই পেয়েছি। কি যে খুশি লাগছে।

শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস দেখে খুশি শিক্ষকরাও। রাজধানীর বনানী বিদ্যানিকেতনের শিক্ষক শর্মী আচার্য বলেন, প্রায় প্রতিবছরই আমরা বই উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেই। কিন্তু গত প্রায় দুই বছর একটা মহামারী সময় আমরা পার করেছি। এই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আমাদের অনেক প্রিয়জনকে হারাতে হয়েছে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মানতে নেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ সতর্কতা। আর এরই প্রেক্ষিতে সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এ বছর বই উৎসব হয়নি। কিন্তু আজ (কাল) নতুন বই পেয়েছে বিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীরাই। এই আনন্দ যেমন তাদের তেমনি আমাদেরও। ওরাই তো আমাদের ভবিষ্যত।

এনসিটিবি থেকে জানা যায়, সারাদেশে এ বছর ৩৪ কোটি ৭০ লাখ ২২ হাজার ১৩০ কপি পাঠ্যপুস্তক ৪ কোটি ১৭ লাখ ২৬ হাজার ৮৫৬ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রেইল পাঠ্যপুস্তকক ও ৫টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাতৃভাষায় প্রণীত পাঠ্যপুস্তক রয়েছে এবং এ বিতরণ কার্যক্রম ১২ দিনের মধ্যে শেষ করতে বলা হয়েছে।

দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বই বিতরণ করা হয়। শিক্ষামন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী, ভিড় এড়াতে একেক দিন একেক শ্রেণীর বই বিতরণ করা হবে। এনসিটিবির সদ্য বিদায়ী চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা জনকণ্ঠকে বলেন, প্রাথমিকের শতভাগ বই নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পৌঁছে গেছে। গত ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে মাধ্যমিক স্তরেরও ৯৫ শতাংশ বই পৌঁছেছে। তিনি বলেন, গত দুই বছরের চেয়ে এবার অপেক্ষাকৃত ভাল বই দেয়া হচ্ছে। দফায় দফায় পরিদর্শনের কারণে করোনা সঙ্কটের মধ্যেও ভাল বই দিতে পেরেছে মুদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো। এজন্য আমরা তাদের ধন্যবাদ জানাই। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সব বই উপজেলা পর্যায়ে পাঠিয়ে দেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রাথমিকের বই আগেই উপজেলা পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। বাকিগুলো জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে চলে যাবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি পাঠ্যবই বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন। এদিকে নতুন বইয়ের ঘ্রাণ ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জনকণ্ঠের প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে জানা যায়, নতুন বই পেয়ে উচ্ছ্বসিত সব শিক্ষার্থীই।

টাঙ্গাইল থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, সারাদেশের মতো টাঙ্গাইলের সব প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং মাদ্রাসাগুলোতে শিক্ষার্থীতের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়েছে। শনিবার সকালে মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ড. আতাউল গনি। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আমিনুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শরিফুল ইসলাম, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল আজিজসহ শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এদিন সকালেই শিক্ষার্থীরা তাদের অভিভাবকদের সঙ্গে নিয়ে স্কুল ড্রেস পরে স্কুলে হাজির হয়। তিনি জানান, বছরের প্রথম দিনেই নতুন চকচকে পাঠ্যবই হাতে পেয়ে খুশি শিক্ষার্থীরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, বছরের প্রথম দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় উৎসবমুখর পরিবেশে প্রায় ৭ লাখ শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন হয়েছে। শনিবার সকালে শহরের নিয়াজ মুহাম্মদ উচ্চ বিদ্যালযের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জীবন ভট্টাচার্য। এ সময় বক্তারা বলেন, সরকারের আন্তরিকতার ফলে প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও বছরের প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়েছে। যা বিশ্বের ইতিহাসে অনন্য দৃষ্টান্ত। পরে অতিথিরা বিভিন্ন শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের মধ্যে নতুন পাঠ্যবই বিতরণ করেন। এই কার্যক্রমের আওতায় জেলায় পর্যায়ক্রমে মাধ্যমিক পর্যায়ে ২ লাখ ৮৪ হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৪১ লাখ ৮৫ হাজার ৯১৫ টি বই এবং প্রাথমিক পর্যায়ে ৫ লাখ ৪ হাজার ২১৯ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ২৩ লাখ ৬০ হাজার পাঠ্যবই বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে।

বরিশাল ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, করোনার কারণে ব্যাপক পরিসরে বই উৎসব না হলেও বছরের প্রথম দিনেই বরিশালে আনন্দঘন পরিবেশে বই বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। নতুন বই পেয়ে দারুণ খুশি শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকরা। এদিন বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর মুকুল স্মৃতি স্কুল মাঠে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ জসীম উদ্দিন হায়দার। এ সময় তিনি বলেন, বছরের প্রথম দিনেই শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে বই উপহার দেয়া বর্তমান সরকারের সবচেয়ে বড় সফলতা। করোনার জন্য বই উৎসব করতে না পারলেও আজ থেকে পর্যায়ক্রমে সব শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেয়া হবে। এর আগে নগরীর নব আদর্শ স্কুলে বই বিতরণ করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ মজুমদার। এ বছর বরিশাল জেলায় প্রাথমিকে সাড়ে ১৪ লাখ বইয়ের চাহিদা থাকলেও বই এসেছে ১৩ লাখ। মাধ্যমিকে ৪৩ লাখ চাহিদার বিপরীত এখন পর্যন্ত বই এসেছে ২৫ লাখ।

চট্টগ্রাম ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, করোনার কারণে বৃহৎ আকারে বই উৎসব না হলেও থেমে নেই বিদ্যালয়ে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস। নতুন বইয়ের গন্ধে মাতোয়ারা স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। নতুন বছরে নতুন বই পেয়ে আনন্দিত নগরীর শিশু শিক্ষার্থীরা। পহেলা জানুয়ারি মানে ‘বই উৎসব’।

২০১০ সালে আওয়ামী লীগ সরকার বই উৎসবের মাধ্যমে প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিকের প্রতিটি শ্রেণীর শিক্ষার্থীর হাতে বই তুলে দেয়। যা আগের কোন সরকারের আমলে হয়নি। শিক্ষা প্রসারে যা অনন্য বলছেন শিক্ষাবিদরা। বিনামূল্যে বই বিতরণের ফলে তৃণমূলেও বেড়েছে শিক্ষার হার। এগিয়ে চলেছে নারী শিক্ষার প্রসার।

চট্টগ্রামে সারাদেশের মতো শনিবার বই বিতরণ শুরু হয়। তবে নগরীর স্কুলগুলোতে শুধু পঞ্চম ও ষষ্ঠ শ্রেণীর বই বিতরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য শ্রেণীর বই বিতরণ হবে।

রাজশাহী ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, রাজশাহীর স্কুলগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শনিবার সকাল থেকে শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া হয় নতুন বই। জেলায় এবার প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে মোট ৫ লাখ ২০ হাজার ৫১৮ শিক্ষার্থীর হাতে পৌঁছানো হবে নতুন বই। এদিকে শনিবার সকালে নতুন বছরের প্রথমদিনেই বই পেয়ে খুশি শিক্ষার্থীরা। নতুন বইয়ের কোন সঙ্কট নেই বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠান প্রধানরা।

ঠাকুরগাঁও ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, শহরের কালেক্টরেট স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীর হাতে শনিবার সকালে বিনামূল্যে বই তুলে দিয়ে বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান। এছাড়া পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন পুলিশ লাইন স্কুলের শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়ে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

কেরানীগঞ্জ ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, উপজেলার শুভাঢ্যা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে শনিবার নতুন বই তুলে দেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ গোলাম হোসেন সোহেল। নতুন বই হাতে পেয়ে আনন্দ ও উচ্ছ্বাসে আত্মহারা শিক্ষার্থীরা। কেউ কেউ বই হাতে পেয়েই দৌড় দিয়েছে, আবার কেউবা বই বুকে জড়িয়ে বাড়ির পথ ধরেছে। এ চিত্র এখন কেরানীগঞ্জের প্রায় ২০০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের।

মুন্সীগঞ্জ ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, সদর উপজেলার অন্যতম বিদ্যাপীঠ বজ্রযোগিনী জেকে উচ্চ বিদ্যালয়ে শনিবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে নতুন বই বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে বই বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন স্থানীয় এমপি ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস। নতুন বই হাতে পেয়ে আনন্দ ও উচ্ছ্বাসে আত্মহারা শিক্ষার্থীরা। বই বিতরণ অনুষ্ঠানে বজ্রযোগিনী জেকে উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শেখ জাহাঙ্গীর আলম সভাপতিত্ব করেন।

নীলফামারী ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, জেলা শহরের জানকীনাথ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শনিবার বেলা ১১টার দিকে শিক্ষার্থীদের নতুন বই বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আজহারুল ইসলাম, পৌর মেয়র জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন নাহার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন সরকার প্রমুখ। এদিকে জেলার ৬ উপজেলায়ও নতুন বই হাতে পেয়ে আনন্দিত ছোট্ট সোনামণিরা।

গোপালগঞ্জ ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বীণাপাণি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শনিবার দুপুরে বই বিতরণের মধ্য দিয়ে জেলায় বই বিতরণ উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সহসভাপতি চৌধুরী আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোছাঃ নাজমুন নাহার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আনন্দ কিশোর সাহা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাশেদুর রহমান, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মামুন খান, বীণাপাণি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তার উপস্থিত ছিলেন।

লক্ষ্মীপুর ॥ নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, রামগঞ্জ উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বই উৎসবে শনিবার যোগ দেন স্থানীয় এমপি ড. আনোয়ার খান। এদিন সকাল ৯ টায় কাঞ্চন ইউনিয়নে জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি স্কুল এ্যান্ড কলেজের ছাত্রছাত্রীদের মঝে বই বিতরণ উদ্বোধন করেন। পরে তিনি নোয়াগাঁও ইউনিয়নের নোয়াগাঁও জনকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয়, ইছাপুর ইউনিয়নের নুনিয়াপাড়া দাখিল মাদ্রাসা, নারায়ণপুর উচ্চ বিদ্যালয়, ভোলাকোট ইউনিয়নের আথাকরা উচ্চ বিদ্যালয়সহ ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বই উৎসবে অংশগ্রহণ করেন।

...
News Admin

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


খুলনা বিভাগের সাংবাদিক, মুক্ত হাতে যারা লিখতে ভালোবাসেন তাদের জন্য সুখবর। বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত, মিডিয়া অন্তুর্ভুক্ত জাতীয় দৈনিক সরেজমিনবার্তা পত্রিকায় খুলনা বিভাগীয় প্রধান , জেলা প্রতিনিধি , বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি পদে নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীগণ ০১৭১৫ ৯৫ ৯৩ ৪৪ এই নম্বর এ যোগাযোগ করুন।

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ