গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত নিবন্ধন নাম্বার ৬৮

অবৈধ সিএনজির গোডাউন অক্সিজেন ?

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৯ দিন ২১ ঘন্টা ২ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 830
...

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির সঙ্গে সমন্বয় করে সরকার বাস ভাড়া বাড়ালেও গণপরিবহণ শ্রমিকরা তার চেয়েও ১৫ থেকে ২০ শতাংশ বেশি আদায় করছেন। এ নিয়ে গত প্রায় এক মাস ধরে প্রতিদিনই রাজধানীর বিভিন্ন রুটে যাত্রীদের সঙ্গে বাস শ্রমিকদের বাগ্‌বিতন্ডা, এমনকি হাতাহাতির ঘটনা ঘটছে। অথচ সিএনজি অটোরিকশার ভাড়া কয়েক দফা বাড়ানোর পরও তারা মিটার অনুযায়ী নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ বেশি আদায় করেও নির্বিঘ্নে পার পেয়ে যাচ্ছে। লোকবল সংকট ও আইনি জটিলতাসহ নানা অজুহাত দাঁড় করিয়ে এরই মধ্যে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটিসহ (বিআরটিএ) সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রশাসন সিএনজি চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হচ্ছে। সিএনজি অটোরিকশা মানেই মিটার অনুযায়ী ভাড়া নির্ধারণ করা যাবে না, দরকষাকষি করেই ভাড়া ঠিক করতে হবে- এ বিষয়টি নগরবাসী যেন একরকম মেনেই নিয়েছেন। তবে অটোরিকশায় যাদের নিয়মিত যাতায়াত নেই, তারা কালেভদ্রে এ যানে চড়ে বড় ধাক্কা খাচ্ছেন। মিটার অনুযায়ী একশ' টাকা ভাড়া হলেও চুক্তিতে দুইশ' টাকা দিতে গিয়ে অনেকে মেজাজ হারিয়ে ফেলছেন। ছোট গাড়ির ভাড়ায় এ বড় নৈরাজ্য চলমান থাকলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন বছরের পর বছর ধরে কীভাবে চোখ বুজে রয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। তবে বিআরটিএ ও ট্রাফিক বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দাবি, যাত্রীদের অসচেতনতা এবং প্রতিবাদ করার অনীহার কারণে অটোরিকশা চালকরা মিটারে না গিয়ে ইচ্ছে অনুযায়ী অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের সুযোগ পাচ্ছে। শর্ত ভেঙে তারা মিটারে যাত্রী বহন না করলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না। এদিকে শুধু অটোরিকশা নয়, রাইড শেয়ারিংয়ের গাড়িগুলোও এখন গলাকাটা ভাড়া আদায় করছে। অ্যাপভিত্তিক প্রতিষ্ঠানে নিবন্ধন করে রাস্তায় যাত্রী পরিবহণ করা প্রাইভেট কারগুলো এখন শর্ত ভঙ্গ করে ভাড়া নৈরাজ্য চালাচ্ছে। রাইড শেয়ারিং অ্যাপিস্নকেশন ব্যবহার না করে তারা যাত্রীদের সঙ্গে চুক্তিতে অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি দিয়ে গত ২৮ অক্টোবর বিআরটিএ বিজ্ঞপ্তি জারি করলেও তা কাগজে-কলমেই রয়ে গেছে। ভুক্তভোগীরা জানান, অ্যাপে ১৫০ টাকা ভাড়া আসলেও সেখানে ৩শ' থেকে সাড়ে ৩শ' টাকা ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে ট্রাফিক ও থানা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও তেমন কোনো লাভ হচ্ছে না। সিএনজি অটোরিকশা মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে কথা বলে ছোট গাড়ির ভাড়ায় বড় নৈরাজ্যের নেপথ্যের চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। জানা গেছে, চট্টগ্রাম মহানগরীতে যে সংখ্যক বৈধ সিএনজি অটোরিকশা রয়েছে, তার চেয়ে অবৈধ অটোরিকশার সংখ্যা বেশি। ব্যক্তি মালিকানায় এসব অবৈধ গাড়ি পরিচালিত হলেও এর নেপথ্যে রয়েছে নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরাই। মাসিক মোটা অঙ্কের চাঁদার বিনিময়ে ট্রাফিক পুলিশও এ অবৈধ যানবাহন পরিচালনার সুযোগ করে দিচ্ছে। \হএ বিষয়ে চট্টগ্রাম মহানগর সিএনজি অটোরিকশা ব্যবসায়ী মালিক সমিতির এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সরেজমিন বার্তা কে বলেন, অবৈধ যানবাহন নিয়ন্ত্রণকারীদের সঙ্গে তাদের গোপন আঁতাত রয়েছে। চট্টগ্রাম ১৫ হাজার ২ \হবৈধ সিএনজি অটোরিকশার সঙ্গে আরও প্রায় ২০ হাজার অবৈধ অটোরিকশা চলছে। যা হাটহাজারী, অক্সিজেন, মুরাদপুর  সহ চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আনা হয়েছে। ওইসব অবৈধ অটোরিকশায় মিটার নেই। এসব অটোরিকশার ব্যাপারে তারা কোনো আপত্তি তুলবে না- এ শর্তে তাদের বৈধ অটোরিকশা মিটার অনুযায়ী ভাড়া নেওয়ার শর্ত শিথিল করে দেওয়া হয়েছে। অবৈধ অটোরিকশা তুলে দেওয়া হলে তারা মিটার অনুযায়ী ভাড়া নেওয়ার শর্ত কার্যকর করবে বলে জানান ওই মালিক সমিতির নেতা। বৈধ অটোরিকশার চালকরা জানান, অবৈধ অটোরিকশার আধিক্যের কারণে তাদের যাত্রী অনেক কমে গেছে। এ কারণে তারা মিটার অনুযায়ী ভাড়া নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। অবৈধ অটোরিকশা তুলে দেওয়া হলে তাদের যাত্রী বাড়বে। এ সময় মিটারে ভাড়া নিলেও তাদের পুষিয়ে যাবে। অবৈধ অটোরিকশা মিটার ছাড়া চলতে পারলে তারা কেন মিটারে চলবে- প্রশ্ন তোলেন তারা। এদিকে অটোরিকশার ভাড়া নৈরাজ্য বন্ধে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত থাকার দাবি জানালেও চট্টগ্রাম সহ সারাদেশে সিএনজিচালিত 'প্রাইভেট অটোরিকশার' নামে কয়েকশ' কোটি টাকার অবৈধ ব্যবসার বিরুদ্ধে তাদের নিষ্ক্রিয়তার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের ঊর্ধ্বতনরা কেউ কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। অথচ স্রেফ প্রাইভেট অটোরিকশা নামে রুট পারমিট ছাড়া ভাড়ায় গাড়ি চালানোর কারণে সরকার অন্তত ২০০ কোটি টাকার রাজস্ব উপার্জন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অথচ ট্রাফিক পুলিশ, বিআরটিএ এবং একশ্রেণির মালিকের যোগসাজশে এ অবৈধ ব্যবসার বিস্তৃতির বিষয়টি অনেকদিন আগে থেকেই 'ওপেন সিক্রেট'। প্রাইভেট অটোরিকশার মালিকদের একটি বড় অংশ পুলিশ বিভাগের সদস্য বলে খোদ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারাই স্বীকার করেছেন। অবৈধ ব্যবসাকে বৈধতা দিয়ে ট্রাফিক পুলিশের মাসে প্রায় সোয়া ৩ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চাঞ্চল্যকর তথ্যও বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো জানায়, চট্টগ্রাম ও  বাইরে ভাড়ায় চালিত একটি সিএনজি অটোরিকশার রুট পারমিট নেই, অক্সিজেন এলাকায় হাজার হাজার সিএনজি চলে অবৈধভাবে তার কোন নেই কাগজপত্র এবং ড্রাইভিং লাইসেন্স, ট্রাফিক সার্জেন্টের অবহেলায় এই অবৈধ গাড়িগুলো চলে।

...
MD. Alauddin

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


খুলনা বিভাগের সাংবাদিক, মুক্ত হাতে যারা লিখতে ভালোবাসেন তাদের জন্য সুখবর। বাংলাদেশের বহুল প্রচারিত, মিডিয়া অন্তুর্ভুক্ত জাতীয় দৈনিক সরেজমিনবার্তা পত্রিকায় খুলনা বিভাগীয় প্রধান , জেলা প্রতিনিধি , বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি পদে নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীগণ ০১৭১৫ ৯৫ ৯৩ ৪৪ এই নম্বর এ যোগাযোগ করুন।

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ