+

রাগনা বটুলি স্হলবন্দর ইমিগ্রেশন দিয়ে ভারতে যাওয়ার ব্যাবস্থা করার দাবি মৌলভীবাজার বাসির।

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ৮ দিন ২৩ ঘন্টা ৪৮ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 675
...

বড়লেখা উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ নজরুল ইসলাম:: 

মৌলভীবাজারের জুড়ি রাগনা বটুলি এলাকায় ইমিগ্রেশন শুল্ক স্হলবন্দর হওয়ার দুই যোগ অতিবাহিত হয়েছে। পাসপোট নিয়ে ভারত থেকে লোকজন আসতে পারলেও বাংলাদেশ থেকে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।এছাড়া জনবল অবকাঠামোর সমস্যা অফিস ইকুপম্যান্ট সমস্যা সহ নানবিদ সমস্যায় জর্জরিত রাগনা বটুলি স্থলবন্দরটি।বৈধপতে ভারতে যাওয়ার ব্যাবস্থা করা সহ সবধরনের সমস্যার দ্রুত সমাধান চায় মৌলভীবাজার জেলা বাসী।

মৌলভীবাজারের জুড়ি রাগনা বটুলি ইমিগ্রেশন স্থলবন্দরটি ১৯৯৮ সালে আওয়ামীলিগ সরকারের আমলে কাজ শুরু হয়।২০০২ সালে এর কার্যক্রম শুরু হয়। বন্ধুপ্রতিম দেশ ভারতের সাথে বিভিন্ন পণ্য সহ মালামাল আমদানি রপ্তানি হতো। সে সময়ে দুই দেশের লোকজন আসা যাওয়া করতে পারতো।২০০২ সালে ভারতে বিচ্চিন্নতাবাদি উলফার উৎপাতে বৈধপতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়ার পথে তাদের উপর হামলা চালানো হতো। আর অনেক কেই তুলে নিয়ে যেত উলফাগুষ্টি।

বর্তমানে উলফা জনগুষ্টির কোন উৎপাত নেই।তাই এ অঞ্চলের লোকজনের দীর্ঘদিনের দাবি ভারতে যেতে হলে তাদের অন্যান্য দুরবর্তী স্থলবন্দর দিয়ে যেতে হয়।তাদের দাবি তাদের জেলার মধ্যে রাগনা বটুলি স্থলবন্দর দিয়ে বিভিন্ন পণ্য আমদানি রপ্তানি হয়।লোকজন ভারত থেকে এই স্থলবন্দর দিয়ে আসতে পারে।তাই এ অঞ্চলবাসির জোরালো দাবি যাতে তারাও এই স্থলবন্দর দিয়ে বন্দুপ্রতিম দেশ ভারতে যেন যেতে পারে।বন্দর সংলিষ্ট সূত্র থেকে জানা গেছে প্রতি বৎসর এ বন্দর থেকে প্রায় ১৩-১৪ কোটি টাকা রাজস্ব পায় সরকার।শুল্ক স্থলবন্দরের জন্য ৩৮ বিঘা জমি একোয়ার করা হলেও ফাইলবন্দি হয়ে আছে এখনো।

২৭ কিলোমিটার ছোট এবং জরাজীর্ণ রাস্তার জন্য বন্দরের আমদানি রপ্তানিকৃত গাড়ি পণ্য নিয়ে যাতায়াত করতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হত। ১২ফুট প্রসস্থ রাস্তা ১৮ ফুট উন্নতি করে হাইওয়ে রাস্তার রুপান্তর করা হয়েছে।এলাকার সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন এ রাস্তার জন্য ৭৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন৷ আগামি ৩০ জুলাই এ রাস্তার কাজ শেষ হবে বলে জানা গেছে। রাস্তার কাজ ছাড়া বন্দর স্থাপন করার দুই যোগ পার হলেও এখনো কোন ধরনের উন্নতি হয়নি।অবহেলায় পড়ে আছে স্থলবন্দরের ছোট্ট অফিসটি। বৃষ্টি হলেঅফিসে থাকা কাগজপত্র পানিতে বিজে নষ্ট হয়ে যায়।দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা কর্মচারীরা আসবাবপত্রের সংকটের জন্য গাদাগাদি করে দায়িত্ব পালন করতে হয় অফিসকক্ষে।

জনবল সংকট অবকাঠামোর সমস্যা, অফিস ইকুপম্যান্ট সমস্যা সহ নানবিধ সমস্যায় জর্জরিত। জুড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বদরুল ইসলাম,জুড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ মোঈদ ফারুক, জুড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুক আহমদ, গোয়ালবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমন, উপজেলা জুবলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ সাজু, আওয়ামীলীগ নেতা জাকির হোসেন কালা সহ এলাকবাসির দাবি দ্রুত এসব সমস্যার সমাধান করে আমাদের বন্ধুপ্রতীম দেশ ভারতের সাথে যেভাবে ওই স্থলবন্দর দিয়ে বৈধপথে যাওয়া আসা যায় তার দ্রুত ব্যবস্থা করতে স্থানীয় সাংসদ ও বাংলাদেশ সরকারের বন পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন সহ সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের প্রতি জোরালো দাবি তাদের।

মৌলভীবাজারের জুড়ি রাগনা বটুলি এলাকায় ইমিগ্রেশন শুল্ক স্হলবন্দর হওয়ার দুই যোগ অতিবাহিত হয়েছে। পাসপোট নিয়ে ভারত থেকে লোকজন আসতে পারলেও বাংলাদেশ থেকে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।এছাড়া জনবল অবকাঠামোর সমস্যা অফিস ইকুপম্যান্ট সমস্যা সহ নানবিদ সমস্যায় জর্জরিত রাগনা বটুলি স্থলবন্দরটি।বৈধপতে ভারতে যাওয়ার ব্যাবস্থা করা সহ সবধরনের সমস্যার দ্রুত সমাধান চায় মৌলভীবাজার জেলা বাসী। মৌলভীবাজারের জুড়ি রাগনা বটুলি ইমিগ্রেশন স্থলবন্দরটি ১৯৯৮ সালে আওয়ামীলিগ সরকারের আমলে কাজ শুরু হয়।২০০২ সালে এর কার্যক্রম শুরু হয়। বন্ধুপ্রতিম দেশ ভারতের সাথে বিভিন্ন পণ্য সহ মালামাল আমদানি রপ্তানি হতো।

সে সময়ে দুই দেশের লোকজন আসা যাওয়া করতে পারতো।২০০২ সালে ভারতে বিচ্চিন্নতাবাদি উলফার উৎপাতে বৈধপতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়ার পথে তাদের উপর হামলা চালানো হতো। আর অনেক কেই তুলে নিয়ে যেত উলফাগুষ্টি।বর্তমানে উলফা জনগুষ্টির কোন উৎপাত নেই।তাই এ অঞ্চলের লোকজনের দীর্ঘদিনের দাবি ভারতে যেতে হলে তাদের অন্যান্য দুরবর্তী স্থলবন্দর দিয়ে যেতে হয়।তাদের দাবি তাদের জেলার মধ্যে রাগনা বটুলি স্থলবন্দর দিয়ে বিভিন্ন পণ্য আমদানি রপ্তানি হয়।লোকজন ভারত থেকে এই স্থলবন্দর দিয়ে আসতে পারে।তাই এ অঞ্চলবাসির জোরালো দাবি যাতে তারাও এই স্থলবন্দর দিয়ে বন্দুপ্রতিম দেশ ভারতে যেন যেতে পারে।বন্দর সংলিষ্ট সূত্র থেকে জানা গেছে প্রতি বৎসর এ বন্দর থেকে প্রায় ১৩-১৪ কোটি টাকা রাজস্ব পায় সরকার।শুল্ক স্থলবন্দরের জন্য ৩৮ বিঘা জমি একোয়ার করা হলেও ফাইলবন্দি হয়ে আছে এখনো।

২৭ কিলোমিটার ছোট এবং জরাজীর্ণ রাস্তার জন্য বন্দরের আমদানি রপ্তানিকৃত গাড়ি পণ্য নিয়ে যাতায়াত করতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হত। ১২ফুট প্রসস্থ রাস্তা ১৮ ফুট উন্নতি করে হাইওয়ে রাস্তার রুপান্তর করা হয়েছে।এলাকার সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন এ রাস্তার জন্য ৭৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন৷ আগামি ৩০ জুলাই এ রাস্তার কাজ শেষ হবে বলে জানা গেছে। রাস্তার কাজ ছাড়া বন্দর স্থাপন করার দুই যোগ পার হলেও এখনো কোন ধরনের উন্নতি হয়নি।অবহেলায় পড়ে আছে স্থলবন্দরের ছোট্ট অফিসটি। বৃষ্টি হলেঅফিসে থাকা কাগজপত্র পানিতে বিজে নষ্ট হয়ে যায়।দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা কর্মচারীরা আসবাবপত্রের সংকটের জন্য গাদাগাদি করে দায়িত্ব পালন করতে হয় অফিসকক্ষে।

জনবল সংকট অবকাঠামোর সমস্যা, অফিস ইকুপম্যান্ট সমস্যা সহ নানবিধ সমস্যায় জর্জরিত। জুড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বদরুল ইসলাম,জুড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ মোঈদ ফারুক, জুড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুক আহমদ, গোয়ালবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমন, উপজেলা জুবলীগের সভাপতি মামুনুর রশিদ সাজু, আওয়ামীলীগ নেতা জাকির হোসেন কালা সহ এলাকবাসির দাবি দ্রুত এসব সমস্যার সমাধান করে আমাদের বন্ধুপ্রতীম দেশ ভারতের সাথে যেভাবে ওই স্থলবন্দর দিয়ে বৈধপথে যাওয়া আসা যায় তার দ্রুত ব্যবস্থা করতে স্থানীয় সাংসদ ও বাংলাদেশ সরকারের বন পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন সহ সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের প্রতি জোরালো দাবি তাদের।

...
Nazrul Islam(SJB:E615)
Mobile : 01792301830

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন
01868974512

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ