+

জেনে নিন মহাজগতের ১০ টি ডায়মেনশন সম্পর্কে

সরেজমিনবার্তা | নিউজ টি ১৮ দিন ২০ ঘন্টা ৫২ সেকেন্ড আগে আপলোড হয়েছে। 1105
...

মোঃ সোহেল রানাঃ   স্ট্রিং তত্ত্ব অনুসারে মহাজগতে সাধারণত ১০ টি ডায়মেনশন আছে বলে ধরা করা হয়।

0D:জিরো ডায়মেনশন বলতে একটি ছোটো বিন্দুকে বোঝানো হয় যা এক জায়গায় স্থির।

1D:১ম ডায়মেনশন হল একটি সরলরেখা যা দুটি বিন্দুকে যুক্ত করে।

2D:দ্বিতীয় ডায়মেনশন হল খাতার পাতায় আঁকা ছবি।

3D:তৃতীয় ডায়মেনশন হল আমাদের বাস্তব জগত যা ডাঁয়ে, বাঁয়ের সাথে উপর নিচেও যেতে পারে।

4D:চতুর্থ ডায়মেনশন হল সময়।যে কালে আমরা অবস্থান করি।বাস্তবে আমরা সময়কে অনুভব করি।কিন্তু সেই স্থানে যেতে পারিনা।(টাইম মেশিন)

5D: পঞ্চম ডায়মেনশন। আচ্ছা আমরা সময়ের সাথে সাথে এগিয়ে চলি কিন্তু পিছতে তো যেতে পারি না।যদি আমরা সময়কে পিছিয়ে অতীতে যেতে পারতাম তবে তা হত পঞ্চম ডায়ামেনশন।

6D:ষষ্ঠ ডায়মেনশনে।এক্ষেত্রে সময়কে আমরা আগে পিছে নেওয়ার সাথে সাথে ডানে বাঁয়েও নিতে পারব।যেমন যদি একটা ছাত্র এই সিদ্ধান্ত নিতে না পারে যে তার ডাক্তারি পড়া উচিত না ইঞ্জিনিয়ারিং সেক্ষেত্রে সে একবার ডাক্তারি পড়ে দেখতে পারে যে তাতে সফল হল কিনা যদি না হয় তবে অতীতে ফিরে আবার ইঞ্জিনিয়ারিং নিতে পারবে।

7D: সপ্তম ডায়মেনশন। যেখানে একটি ছাত্র একবার ডাক্তার হল আবার সে অতীতে ফিরে ইঞ্জিনিয়ার হল এবার সেই ছাত্রের ডাক্তার আর ইঞ্জিনিয়ার রূপ দুজনে দুজনের সাথে দেখা করতে পারবে।কথা বলতে পারবে।( প্যারাডক্স থিওরি)

8D: ৮ম ডায়মেনশনে এই সাতটি ডায়মেনশন যুক্ত জগৎ আরও একটি সাত ডায়মেনশন যুক্ত জগতের সাথে এক হতে পারবে।অর্থাৎ একই ব্যক্তির জন্ম থেকেই আর একটি রূপ থাকবে যা অন্য জগতে অবস্থিত হবে।এবং দুটি রূপ একে অপরের সাথে মিলিত হতে পারবে।(ছয় নম্বর ডায়ামেনশনে দুটো কেরিয়ার নেওয়ার সময় দুটি সত্বা হয়েছিল এক্ষেত্রে জন্ম থেকেই থাকবে)।

9 &10D: 8D এর মতো নয় ও দশ ডায়মেনশনেও আরও অন্যান্য প্যারালাল ওয়ার্ল্ডের সাথে আমরা যুক্ত হতে পারব।

 

(বলে রাখা ভাল এখানে সময় বাদে সবগুলো মাত্রাই স্থানের মাত্রা)

যেহেতু মহাজগত দশ ডায়মেনশনের।তাই মহাজগতের সবকিছুর মাত্রা দশ।
যেমন:
একজন ব্যক্তি যে পৃথিবীতে জন্মগ্রহন করেছে সে এরকম আরও দশটি পৃথিবীতে একই সাথে জন্মগ্রহন করেছে এবং অবস্থান করছে।

এবার আসি অদৃশ্য বস্তুতে।
মহাবিশ্বের মাত্র ৪% দৃশ্যমান বস্তু।বাকি ৯৬% অদৃশ্য।

এবং অদৃশ্য ভরের ২১% গুপ্ত পদার্থ। বাকি ৭৫% গুপ্ত শক্তি।

প্রশ্ন আসতে পারে তাহলে এগুলো আমরা দেখতে বা অনুভব করতে পারিনা কেন?

মানুষ থ্রি ডায়মেনশনাল জীব তাই তারা সেইসব জগতে কোনোদিনও প্রবেশ করতে পারবে না।এমন কি তাদের প্রতিরূপও দেখতে পাবে না।কিন্তু মানুষ প্রবেশ না করতে পারলে কি হবে এমন কোনো জীব বা এলিয়েন বা জ্বীন তো থাকতেই পারে যারা মানুষের চেয়ে বেশি ডায়ামেনশনকেই প্রত্যক্ষ করতে সক্ষম।যারা অন্য ডায়মেনশনের জীব।

স্ট্রিং থিওরী অনুসারে 11D আছে বলেও ধারনা করা হয়।৷ 11D হোক আর বা অসীম হোক 10D এর পর ডায়মেনশনের জ্ঞান যার আছে তিনিই সৃষ্টিকর্তা।

সোর্সঃ https://www.universetoday.com/48619/a-universe-of-10-dimensions/

...
MD. SOHEL RANA(SJB:E106)
Mobile : 01711370852

সম্পাদক ও প্রকাশক
মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া
01731 80 80 79
01798 62 56 66

ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক
আল মামুন
01868974512

প্রধান কার্যালয় : লেভেল# ৮বি, ফরচুন শপিং মল, মৌচাক, মালিবাগ, ঢাকা - ১২১৯ | ই-মেইল: news.sorejomin@gmail.com , thana.sorejomin@gmail.com

...

©copyright 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা

Family LAB Hospital
সর্বশেষ সংবাদ