সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন ও নির্বাচনি প্রচার নিয়ে বিভিন্ন দেশে চলছে বিতর্ক

news-details
আন্তর্জাতিক

প্রসঙ্গত বিতর্কের মুখে টুইটার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা কোনো রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন প্রচার করবে না। তবে উল্টোপথে হেঁটেছে ফেসবুক। কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তি ভুল বা মিথ্যা বিজ্ঞাপন দিলেও ফেসবুক এ ব্যাপারে বাধ্যবাধকতা তৈরি করবে না বলে জানিয়েছে। ডিসেম্বরে যুক্তরাজ্যের নির্বাচনকে ঘিরে এ ধরনের ঘোষণা ফেসবুককে সমালোচনার মধ্যে ফেলেছে।

ব্যারন কোহেন ফেসবুকের উদ্দেশে বলেন, যদি আপনি তাদের অর্থ দেন আপনি যেকোনো ধরনের রাজনৈতিক প্রচার চালাতে পারবেন। যদি তা মিথ্যাও হয়। টার্গেট অডিয়েন্সকে সেগুলো পৌঁছে দেওয়া ও প্রভাব ফেলাও সম্ভব।

তিনি বলেন, এই যুক্তিতে যদি ১৯৩০ সালের দিকে ফেসবুক থাকত। তাহলে তা হিটলারকে সুযোগ দিত ৩০ সেকেন্ডের একটি ইহুদিবিরোধী বিজ্ঞাপন প্রচারের। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো যেভাবে ঘৃণা ছড়াচ্ছে তা মৌলিকভাবে চিন্তার আহ্বানও জানান ব্যারন। ফেসবুক দাবি করছে ব্যারন কোহেন তাদের নীতিমালা ভুলভাবে প্রচার করছে। কোম্পানিটি বিবৃতিতে জানায়, যারা ঘৃণা-সহিংসতা করে ও যারা এসব সমর্থন করে, আমরা তাদের বিতাড়িত করি।

You can share this post on
Facebook

0 Comments

© 2013 All Rights Reserved By সরজমিনবার্তা