• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২০, ২০২০ , ফাল্গুন - ৮ , ১৪২৬

বগুড়ার লাহিড়ীপাড়ার দোবাড়িয়া গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানী বন্ধের দাবীতে সংবাদ সন্মেলন

news-details
বাংলাদেশ

বগুড়া সদরের লাহিড়ীপাড়া ইউনিয়নের দোবাড়িয়া  গ্রামবাসীর আয়োজনে গ্রামবাসী ও স্থানীয় মসজিদ কমিটির সদস্য সহ নারী পুরুষদের নামে মিথ্যা মামলা ও পুলিশী হয়রানী বন্ধের দাবীতে গ্রামের শতশত নারী পুরুষের উপস্থিতিতে  সংবাদ সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সন্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দোবাড়িয়া জামে মসজিদ কমিটির সদস্য আমজাদ হোসেন।
লিখিত বক্তব্য তিনি বলেন
,লাহিড়ীপাড়া ইউনিয়নের দোবাড়িয়া মৌজায় ৬নং দাগের ১১.২০ শতাংশ জমি যা  জমিদারের ছিল। জমিদারী প্রথা বাতিল হওয়ার পর উক্ত জমি দুই ভাগ করিয়া এক ভাগ জমি গ্রামের গণ্যমান্য ২০/২৫ জনের ও বাকী জমি অন্য ৫ জনের নামে লিখে দেন  যা অনেক দিন যাবৎ গ্রামের সর্ব সাধারণ মানুষ  উন্মুক্ত জলাশয় হিসাবে সেখান থেকে পানি উত্তোলন করিয়া কৃষি জমিতে সেচ কাজে ব্যবহার করে আসিতেছে।যে পাঁচ জনের নামে বাকী জমি ছিল  তাদের একজন মহুরুল্লার পুত্র আইটিএম ময়েজ উদ্দিন।  তৎকলীন সময়ে সে বগুড়া কালেক্টর অফিসে চাকুরী করার সুবাদে সকলের কাছে থেকে খাজনা পত্র নিয়ে সরকারী ভাবে জমা না দিয়ে নিজে আত্মসাৎ করে। পরবর্তীতে সে জমিগুলি নিলাম হয়৷ এ সংবাদ সে গোপন রেখে গাবতলী উপজেলার বামুনিয়া গ্রামের  জনৈক দানেশ উদ্দিনের নামে নিলাম ডেকে পরবর্তীতে তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগমের নামে দানেশের কাছে থেকে কবলা দলিল করে ৩০(ত্রিশ) বছর গোপন করে রাখে৷ বর্তমানে ঐ ২০/২৫ জন ব্যক্তি জমির মালিকানা ছেড়ে দেয় যা  সর্ব সাধারণের এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য জলাশয়ের আয় থেকে গ্রামের স্থানীয় ৩টি মসজিদ ও ঈদগাহ মাঠের উন্নয়নের জন্য ব্যবহার হয়ে আসছে । ময়েজ উদ্দিনের মেয়ে মনোয়ারা বেগম তার মৃত্যুর  পর ২ মেয়ে ও ১ ছেলের নামে ঐ জমি লিখে দেন। যা পরবর্তীতে তাদের কাছে থেকে কুমকুম নামের যে মেয়ে সে তা লিখে নেয়।  কুমকুম তা গোপন করে আসিতেছিল। লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, কুমকুমের মেয়ের স্বামী আখিরুল ইসলাম পুলিশের 
এএসপি হওয়ায় ( বর্তমানে দিনাজপুরের বিরামপুরে কমর্রত) অন্যায় ভাবে পুলিশী শক্তি ব্যবহার করে গ্রামের সহজ সরল নারী পুরুষদের নামে মিথ্যা মামলা ও হয়রানী করছে এবং মসজিদ, ঈদগাহ মাঠ ও মন্দিরের উন্নয়ন কাজ ব্যহত করার লক্ষ্যে জলাশয় গুলি জবর দখলের চেষ্টা করছে৷
 বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত স্বাপেক্ষে গ্রামের সাধারণ নারী পুরুষদের নামে  মিথ্যা মামলা ও হয়রানী বন্ধ করে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা  নেওয়ার জন্য গ্রামবাসী মাননীয় সরকারের স্ব-রাষ্ট্র মন্ত্রনালয়,ধর্মীয় মন্ত্রনালয়  সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
জননেত্রী শেখ হাসিনার জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মিথ্যা মামলা ও পুলিশী হয়রানী বন্ধ না করা হলে আগামীত গ্রামবাসী আরও কঠোর কর্মসূচীর ঘোষনা দিবেন বলে সংবাদ সন্মেলনে জানানো হয়। এসময় গ্রামের শত শত নারী পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

You can share this post on
Facebook

0 Comments

© 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা