নির্দেশিকা না মেনে চলছে গাজীপুর জেলা প্রশাসকের ফেসবুক

news-details
ফিচার

মো. মেহেদী হাসান, গাজীপুর:
সরকারি প্রতিষ্ঠানে সচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও নাগরিক সম্পৃক্তিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের নতুন নতুন সুযোগ তৈরি এবং এসব ক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারিগণের মাঝে ২১ শতকের উপযোগী সক্ষমতা সৃষ্টির লক্ষে দাপ্তরিক যোগাযোগ ও মতবিনিময়, সমস্যা পর্যালোচনা ও সমাধান, জনসচেতনতা ও প্রচারণা, নাগরিক সেবা সহজীকরণ ও উদ্ভাবন, সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও নীতিনির্ধারণী প্রক্রিয়ায় জনগণের অংশগ্রহণ, জনবান্ধব প্রশাসন ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং সেবাগ্রহীতাদের অভিযোগ নিষ্পত্তি করা এই সাতটি প্রাতিষ্ঠানিক কাজে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করতে বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ২০১৬ সালের ২০ মার্চ “সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার নির্দেশিকা-২০১৬” নামে সরকারি প্রতিষ্ঠানে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহারে নির্দেশিকা জারি করলেও গাজীপুর জেলা প্রশাসনের চিত্র ভিন্ন।

বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন ঘেটে দেখা যায়, গাজীপুর জেলা পোর্টালে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের দুইটি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক যুক্ত রয়েছে ইরেজিতে ডেপুটি কমিশনার গাজীপুর(ডিসি গাজীপুর) নামে একটি ফেসবুক প্রফাইল ও ডিসি গাজীপুর নামে নিষ্ক্রিয় একটি ইউটিউব অ্যাকাউন্ট।

নির্দেশিকায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দাপ্তরিক একাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে দপ্তরের একাউন্ট বা পেজ বা ব্যানার ব্যক্তি বা পদবির পরিবর্তে দপ্তর বা প্রতিষ্ঠানের নামে করার পরামর্শ দেয়া হয়। দাপ্তরিক পেজের ব্যানার বা প্রোফাইল ছবিতে কোনো ব্যক্তিগত ছবি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ক্ষেত্রে পুরোটাই উল্টো, ফেসবুক একাউন্টে দপ্তরের নাম ব্যবহারে পরিবর্তে ব্যবহৃত হয়েছে পদবি এবং প্রফাইল ফটোতে সাটানো হয়েছে ব্যক্তিগত ছবি।

যেকানে সরকারের লক্ষ ছিল সরকারি প্রতিষ্ঠানে সচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও নাগরিক সম্পৃক্তিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ২১ শতকের উপযোগীতা অর্জন, সেখানে ডেপুটি কমিশনার গাজীপুর(ডিসি গাজীপুর) প্রফাইলের টাইমলাইন ঘেটে জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন প্রগ্রামের ফটো, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও উর্ধতন কর্তাদের সাথে ফটোশেসন ও নামমাত্র প্রেসরিলিজ ব্যতিত কোন কন্টেন্ট নজরে আসেনি।

সুশাসন প্রতিষ্ঠায় প্রশাসনকে জনগনের কাছে আসার বর্তমান সময়ে সবচেয়ে সহজ মাধ্যম হল সোশ্যাল নেটওয়ার্ক। জনগণের অংশগ্রহণমূলক প্রশাসন নিশ্চিত করতে সোশ্যাল নেটওয়ার্ক বড় ভূমিকা পালন করবে একথা সবাই বিশ্বাস করলেও গাজীপুরের প্রশাসন কেন সোশ্যাল নেটওয়ার্ককে একটি যায়গায় সীমাবদ্ধ করে রেখেছে সেটা নিয়ে রয়েছে নান দ্বিধা-দ্বন্দ্ব। তবে তথ্য প্রযুক্তিবিদরা মনে করেন, প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করতে হলে সরকার তথা প্রশাসনের সাথে জনগণের সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করতে পারে সোশ্যাল নেটওয়ার্ক।

নির্দেশিকায় সরকারি প্রতিষ্ঠানকে তিন মাসে একবার নিজ দপ্তরের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের অগ্রগতি ও কার্যকারিতা পর্যালোচনা করার কথা বলা হয়েছে। বছর শেষে মূল্যায়নের ভিত্তিতে কার্যকর ব্যবহারকারীকে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কার বা স্বীকৃতি দেয়ার কথা বলা হয়েছে। সেরা পোস্ট, কমেন্ট, পেইজ, নাগরিক সমস্যা উপস্থাপনকারী, সেরা সমাধান এবং সেরা প্রচারকে বিবেচনায় নিয়ে পুরস্কার দেয়া যেতে পারে বলে নির্দেশনায় বলা হয়েছে।

নির্দেশিকায় ব্যক্তিগত একাউন্ট খোলার সুযোগ থাকলেও সরকারি চাকরিজীবীকে দায়িত্বশীল আচরণ ও অনুশাসন মেনে চলার কথা বলা হয়েছে। এ ছাড়া জাতীয় ঐক্য ও চেতনার পরিপন্থী এবং রাজনৈতিক মতাদর্শ বা আলোচনা সংশ্লিষ্ট কোনো কনটেন্ট বা আধেয় প্রকাশ না করাসহ কিছু বিধি-নিষেধও মানতে হবে বলে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে।

You can share this post on
Facebook

0 Comments

© 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা