ক্যান্সার প্রতিরোধক ক্যাপসিকাম এখন নরসিংদীতেই চাষ সম্ভব

news-details
বাংলাদেশ

ক্যান্সার প্রতিরোধক ক্যাপসিকাম এখন নরসিংদীতেই চাষ সম্ভব

মাহাবুবুর রহমান,নরসিংদী জেলা প্রতিনিধিঃ অনুসন্ধানে দেখা যায় ভিটামিন ‘এ’ ও ‘সি’ সমৃদ্ধ বিদেশী সবজি হিসেবে খ্যাত ক্যাপসিকাম (মিষ্টি মড়িচ) এখন নরসিংদীতেই চাষ করা সম্ভব। পাশাপাশি ক্যাপসিকামের নতুন একটি জাতও উদ্ভাবন করা হয়েছে। দীর্ঘ সময় গবেষনা করে নরসিংদীর আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দ্র বারি’র উদ্ভিদ বিজ্ঞানীরা এ তথ্য জানিয়েছে। আবহাওয়া ও মাটির গুণাগুন ভালো থাকায় নরসিংদীতে ক্যাপসিকাম চাষে আশার আলো দেখছেন তারা। তাছাড়া এই সবজিটি ক্যান্সার প্রতিরোধক ও অধিক লাভজনক হওয়ায় কৃষক ও সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যপক সাড়া পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন এখানকার উদ্ভিদ বিজ্ঞানীরা।
মো: সোহেল মিয়া, বৈজ্ঞানিক সহকারী, আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দ্র (বারি), শিবপুর,  নরসিংদী তিনি জানান, ২০১২ সালে ক্যাপসিকাম বারি-১ জাতের পরীক্ষামূলক চাষ শুরু করে নরসিংদীর শিবপুরের আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দ্র বারি’র উদ্ভিদ বিজ্ঞানীরা। দীর্ঘ সময় ধরে নিবির পরিচর্যা ও গবেষনার পর সাফল্য পাওয়া যায়। দেশের আবহাওয়ায় চাষোপযোগী জাত না থাকায় ফলটির আশানুরূপ উৎপাদন হয় না। তবে এই জেলায় ক্যাপসিকাম চাষে অপার সম্ভাবনা রয়েছে। পাশাপাশি দীর্ঘ সময় গবেষণা করে এই জেলার আবহাওয়ার সাথে মিলিয়ে আমরা সম্প্রতি ঈঅ০০২৪ নামের ক্যাপসিকামের একটি নতুন জাত উদ্ভাবন করেছি। যা অতিশীঘ্রই কৃষকদের মাঝে রিলিজ করা হবে। এছাড়া দেশের চাইনিজ, বড় বড় রেস্টুরেন্ট ও বাড়িতে সালাত, স্যুপ, সবজি বানাতে ক্যাপসিকামের চাহিদা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে বিধায় এর চাহিদা দিনদিন বাড়ছে। পাশাপাশি নরসিংদী ঢাকার কাছাকাছি হওয়ার ক্যাপসিকাম রপ্তানীতে কৃষক ভাল লাভবান হবেন বলে মনে করছেন তিনি।
 কাজী মারফ আহমেদ, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দ্র (বারি), শিবপুর, নরসিংদী তিনি জানান,কম খরচে অধিক লাভজনক হওয়ায় কৃষকদের মাঝে এর ব্যপক সাড়া পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন তিনি। এছাড়া সঠিকভাবে ক্যাপসিকাম চাষ করতে পারলে ভাল ফলন ও ভাল লাভ পাবে কৃষকরা।
একেএম আরিফুল হক, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত¡ গবেষণা কেন্দ্র (বারি), শিবপুর, নরসিংদী তিনি জানান,ক্যাপসিকাম শুধু সবজি হিসেবেই নয় এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন, প্রোটিন ও ক্যান্সার প্রতিরোধক জিন থাকায় এটি মানুষের ভিটামিনের চাহিদা পূরণ করতে গুরুত্বপূর্ন সহায়ক ভ‚মিকা পালন করবে বলে মনে করছেন তিনি।
তবে গবেষণা কেন্দ্রের এই সাফল্য চাষোপযোগী বিভিন্ন স্থানে কৃষকদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতা চেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। 

You can share this post on
Facebook

0 Comments

© 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা