সাভারে বস্তাবন্দি লাশের রহস্য উদঘাটন, আটক ৩

news-details
বাংলাদেশ

আপেল মাহমুদ, সাভার প্রতিনিধি :
সাভার পৌরসভার এক নং ওয়ার্ডের উত্তর জামসিং এলাকায় বস্তাবন্দি হাজিরা খাতুন টুকটুকি ওরফে মিম(২০) এর হত্যাকান্ডের আসল রহস্য উদঘাটন করেছে সাভার মডেল থানার পুলিশ। এই হত্যাকান্ডের সাথে জরিত তিন আসামী কে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাভার ও কেরানীগন্জ থেকে গ্রেফতার করেনপুলিশ,আটককৃতদের গতকাল রোববার দুপুর আনুমানিক ১,০০ঘটিকায়
সময় আদালতে প্রেরন করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন সাভার পৌরসভার এক নং ওয়ার্ডের উত্তর জামসিং এলাকার মো. জনি (২৪) পিতা. মৃত আব্দুল জলিল, একই এলাকার মো. সেলিম(২২) পিতা. মো. শুকুর আলী এবং নারায়ণগন্জের সোনারগাঁ থানার লক্ষীবরদী গ্রামের মো. জুয়েল(২৮) পিতা. মৃত সিদ্দিকুর রহমান। আসামী তিনজনই ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছেন সাভার মডেল থানার পুলিশ জানান গত ২৫ ই ডিসেম্বর পূর্ব  পরিচয়।

সূত্রে হাজিরা খাতুন টুকটুকি ওরফে মিম কে তার ভাড়া বাসা বনপুকুর থেকে উত্তর জামসিং এলাকায় ডেকে আনেন জনি, পরে ঘটনা চক্রে তিনজন মিলে তাকে হত্যা করে এবং হত্যার পর প্রথমে লাশ জনির বাড়ীর ওয়ারড্রপে রেখে দেয় এবং লাশ গুম করার জন্য সুযোগ খুজতে থাকে। অবশেষে ২৭ই ডিসেম্বর রোজ শুক্রবার সুযোগ বুঝে গভীর রাতে নিহত হাজিরা খাতুন টুকটুকি ওরফে মিম এর লাশ উত্তর জামসিং এলাকায় ফেলে যায়, পরদিন ২৮ই ডিসেম্বর শনিবার সকালে স্থানীয়রা সাভার মডেল থানায় খবর দেয়,পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করার জন্য ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠান এবং একই দিনে সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন সাভার মডেল থানা পুলিশ।নিহত হাজিরা খাতুন টুকটুকির গ্রামের বাড়ী সাতক্ষীরা জেলার
তালা উপজেলার খেসরা গ্রামে , নিহত টুকটুকির পিতার নাম মো. আসাফুর মিয়া এবং স্বামীর নাম মো. মিল্লাত, নিহতের স্বামী মো. মিল্লাত সাভার নিউ মার্কেটের সামনে ফুটপাতে ব্যবসা করেন।
এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানার উপ পরিদর্শক মলয় সাহা জানান, সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এফএম সায়েদ ও ওসি অপারেশন মোঃ জাকারিয়ার নির্দেশে এই হত্যা মামলাটি তদন্তকালে নারীর পরিচয় নিশ্চিত করা হয়েছে।

You can share this post on
Facebook

0 Comments

© 2013 All Rights Reserved By সরেজমিনবার্তা