মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

সরকারি রাস্তা ব্যক্তিকে দিলেন তালার এসিল্যান্ড

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১২ জুলাই, ২০১৯
  • ৮৮ বার পঠিত

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার সুজনশাহ এলাকায় সরকারি রাস্তা ব্যক্তি মালিকানায় ডিসিআর দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এসিল্যান্ড’র বিরুদ্ধে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, টাকার বিনিময়ে তিনি এক ব্যক্তিকে ১৬ শতক সরকারি তালিকাভুক্ত রাস্তা এক বছরের জন্য বন্দোবস্ত দিয়েছেন। রাস্তাটি বন্দোবস্ত পেয়েছেন উপজেলার সুজনশাহ গ্রামের কওসার আলী শেখের ছেলে হাফিজুর রহমান।

শেখ আব্দুর রাজ্জাক জানান, সুজনশাহ মৌজার ১নং খতিয়ানের ৭৬৬ নম্বর দাগের ১৬ শতক জমি। যা সরকারি রেকর্ডীয় রাস্তা। ম্যাপেও রয়েছে। তবে জনগণের ওই চলাচলের রাস্তাটি এসিল্যান্ড ব্যক্তি মালিকানায় এক বছর মেয়াদী একসনা বন্দোবস্ত দিয়েছেন। গত ১৪ মে তিনি ডিসিআর প্রদান করেন। ডিসিআর নম্বর ৩৯।

তিনি বলেন, সরকারি রাস্তাটির দেয়া বন্দোবস্ত বাতিলের জন্য এসিল্যান্ডের কাছে গেলে তিনি বলেন, চাচা ডিসিআরটি দেয়া ভুল হয়ে গেছে। তবে একবার যখন দিয়েছি তখন এক বছর তার কাছে থাকুক। পরের বছর আপনাকে ডিসিআর দেব। তখন আমি জানিয়েছে, আমার ডিসিআর দেয়ার প্রয়োজন নেই। জনগণের রাস্তা জনগণের জন্য উন্মুক্ত করে দেন।

তিনি আরও জানান, এরপর ঘটনাটি নিয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ জানানো হয়। জেলা প্রশাসক এসিল্যান্ডকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার কথা লিখিতভাবে জানান। তবে সেটিরও কোনো প্রতিবেদন এখনও দেননি এই ভূমি কর্মকর্তা। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সরকারি রাস্তা ডিসিআর দিয়েছেন তিনি।

বন্দোবস্ত নেয়া হাফিজুর রহমান বলেন, সেখানে কোনো সরকারি রাস্তা ছিল না। আমি নিয়ম মাফিক বন্দোবস্ত নিয়েছি। আর টাকার বিনিময়ে ডিসিআর নিয়েছি একথা সত্য নয়।

এ বিষয়ে তালার ইসলামকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুভাষ সেন বলেন, এসিল্যান্ডের দেয়া বন্দোবস্তটি সরকারি রেকর্ডীয় রাস্তা। রাস্তাটি সংস্কারের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। তবে এরই মধ্যে এসিল্যান্ড বন্দোবস্ত দেয়ায় রাস্তাটি সংস্কার করা সম্ভব হয়নি। তবে বন্দোবস্তটি বাতিলের জন্য এসিল্যান্ড সাহেবকে বলা হয়েছে।

এদিকে, ঘটনার বিষয়ে জানতে একাধিকবার তালার সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনিমেষ বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

তবে কয়েকদিন আগে অনিমেষ বিশ্বাস জানিয়েছিলেন, ১০ জুলাই (অর্থাৎ বুধবার) ঘটনাস্থলে সরেজমিন তদন্তে যাবেন। এরপর পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। সেটিও তিনি করেননি।

এ ঘটনার বিষয়ে জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল বলেন, তালার এসিল্যান্ড অনিমেষ বদলি হয়ে গেছেন। পরবর্তীতে যিনি এসিল্যান্ড হিসেবে যোগদান করবেন তার মাধ্যমে বিষয়টি আমি দেখবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 sorejominbarta.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com