বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ১২:৫৪ অপরাহ্ন

মানবপাচার রোধে মৃত্যুদণ্ড ও কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট

আনিসুর রহমান
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৭ জুন, ২০১৯
  • ১৩৫ বার পঠিত

প্রতারণার মাধ্যমে মানবপাচার রোধে ‘মানবপাচার দমন’ আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি ‘মৃত্যুদণ্ডের’ বিধান কার্যকর এবং ভুক্তভোগী বা তার পরিবারকে কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট দায়ের করা হয়েছে।

গতকাল রোববার সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ এমদাদুল হক সুমন জনস্বার্থে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদন করেন। বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ রিটের ওপর শুনানি হবে বলে জানান রিটকারী আইনজীবী।

রিটে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের আইজি, সিলেট ও নোয়াখালীর এসপিসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।

সম্প্রতি নদী বা সাগরপথে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে চাকরি বা বসবাসের নামে মানবপাচারের ঘটনা বাড়ছে। প্রতিদিন এ সংক্রান্ত বিভিন্ন খবর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে আসছে। গত ১২ মে অবৈধভাবে সমুদ্র পথে লিবিয়া থেকে ইউরোপ যাওয়ার চেষ্টাকালে তিউনিশিয়ার উপকূল সংলগ্ন ভূমধ্যসাগরে ৭০ জন যাত্রী নিয়ে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ৩৭ জন বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত বাংলাদেশিদের মধ্যে পাঁচজনের বাড়ি সিলেট এবং একজনের বাড়ি মৌলভীবাজার বলে জানা যায়।

রিট দায়ের প্রসঙ্গে এমদাদুল হক সুমন সাংবাদিকদের জানান, প্রতারক ট্রাভেল এজেন্সি ও মানবপাচার চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চেয়ে গতকাল রোববার (১৬ জুন) হাইকোর্টে এ রিট আবেদন করা হয়েছে।

রিট আবেদনে সম্প্রতি ভূমধ্যসাগরে যে ৩৭ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন তাদের প্রত্যেকের পরিবারের জন্য এক কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়েছে। পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত পাচার সংক্রান্ত ঘটনা তদন্ত করে ৩০ দিনের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে।

প্রতারক ট্রাভেল এজেন্সি ও মানবপাচার চক্রকে আইনের আওতায় আনার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে সিলেট ও নোয়াখালীর এসপিকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

এছাড়া এ রিট আবেদনে প্রতারক ট্রাভেল এজেন্সি ও মানবপাচার চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

আইনজীবী এমদাদুল হক সুমন আরও বলেন, গত ৯ মে ভূমধ্যসাগরে তিউনিসিয়ার উপকূলে নৌকাডুবিতে ৩৭ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওইসব প্রতিবেদনে প্রতারক ট্রাভেল এজেন্সিসহ, ১৫ পাচার চক্র ও নোয়াখালীর তিনভাই চক্র অবৈধভাবে মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত থাকার তথ্য উঠে আসে। এরপর এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বিবাদীদের বরাবর আইনি নোটিশ পাঠান এ আইনজীবী। কিন্তু নোটিশের কোনো জবাব না পেয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত ওইসব প্রতিবেদন যুক্ত করে রিট আবেদন করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 sorejominbarta.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com