বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন

ভর্তি জালিয়াতি : বন্ধ হচ্ছে আইডিয়াল অধ্যক্ষের এমপিও

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৩৪ বার পঠিত

ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ফেঁসে যাচ্ছেন রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. শাহান আরা বেগম।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে অধ্যক্ষের এমপিও বন্ধে কারণ দর্শাতে মাউশিকে (মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর) চিঠি দেয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মো. কামরুল হাসান স্বাক্ষরিতে মাউশির মহাপরিচালকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ড. শাহান আরা বেগমের বিরুদ্ধে মতিঝিল, বনশ্রী ও মুগদা শাখায় ২০১৮ সালের দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। এমতাবস্থায়, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ ১৮ (খ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী অধ্যক্ষ ড. শাহান আরা বেগমের এমপিও সাময়িকভাবে স্থগিত করা এবং কেন তার এমপিও স্থায়ীভাবে বন্ধ করা হবে না, সে মর্মে তাকে কারণ দর্শানোর (শোকজ) জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

জানতে চাইলে মাউশির পরিচালক (মাধ্যমিক) প্রফেসর ড. সরকার আব্দুল মান্নান বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার চিঠি এখন পর্যন্ত পাইনি। চিঠি পেলে কারণ দর্শানো হবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা ২০১৭ সালের ১৮ ও ২০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা শেষে শিক্ষকরা উত্তরপত্র অধ্যক্ষ ড. শাহান আরা বেগমের কাছে জমা দেন। এরপর অধ্যক্ষ ড. শাহান আরা বেগম, সহকারী প্রধান শিক্ষক আ. ছালাম খান, অফিস সহকারী দীপা, কবির, আতিক ও ছালাম খানের ভাই আতিক এই ছয়জন মিলে তাদের পছন্দের শিক্ষার্থীদের খাতা আলাদা করেন। শাহান আরা বেগম, ছালাম খান ও দীপা রাবার দিয়ে ভুল উত্তর মুছে নিজেরাই সঠিক উত্তর লিখেন। এভাবে প্রতিষ্ঠানটির মূল শাখা, বনশ্রী ও মুগদা শাখার অন্তত ১০০ শিক্ষার্থীর খাতা জালিয়াতি করে পছন্দের শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হয়। সবচেয়ে বেশি জালিয়াতি করা হয়েছে মূল ক্যাম্পাসের বাংলা মাধ্যমের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের খাতায়। জালিয়াতি করে ভর্তি করে অন্তত তিন কোটি টাকা এই চক্র হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিভাবকরা অভিযোগ করেন।

পরে বঞ্চিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাউশিতে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে মন্ত্রণালয় ঢাকা জেলার ডিসিকে এবং মাউশি ঢাকা অঞ্চলের পরিচালক প্রফেসর মোহাম্মদ ইফসুফকে দিয়ে তদন্ত করান। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পান তারা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে গত ৮ আগস্ট প্রতিবেদনটি জমা দেন ডিসি।
প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দিলে অধ্যক্ষকে অনিয়ম ও দুর্নীতি কারণ জানতে গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর ও ৩ অক্টোবর দুই দফা চিঠি দেয়া হয় অধ্যক্ষকে। তা পাত্তা দেননি অধ্যক্ষ। বাধ্য হয়ে তৃতীয় দফায় ব্যাখ্যা চেয়ে গত বছরের ২২ অক্টোবর তৃতীয় দফা জবাব চেয়ে চিঠি দেয় মন্ত্রণালয়। জবাবে অধ্যক্ষ নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহান আরা বেগম বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।’ এর বাইরে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2019 sorejominbarta.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com