রশিদের উজ্জ্বল দিনে সাদামাটা বাংলাদেশ

রশিদের উজ্জ্বল দিনে সাদামাটা বাংলাদেশ

সিরিজটা শুরু হওয়ার আগ থেকেই রশিদ খানের জুজু তাড়া করে বেড়িয়েছে বাংলাদেশকে। ১৯ বছর বয়সী লেগ-স্পিনার একাই বাংলাদেশ দলকে ধসিয়ে দিয়েছিলেন প্রথম টি-টোয়েন্টিতে। আজ মঙ্গলবার আবারও সেই রশিদেই বিধ্বস্ত হলো বাংলাদেশ। দেরাদুনে আফগান তরুণের চার উইকেট শিকারের দিন লেজের দিকের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে বাংলাদেশের সংগ্রহ আট উইকেট ১৩৪ রান।

এর আগে রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান টস জিতে বেছে নিয়েছিলেন ব্যাটিং। মুজিব-উর-রহমানের মুখোমুখি হয়ে একদম ইনিংস শুরুর বলটাতেই ফিরেছিলেন তামিম ইকবাল। তাই এই ম্যাচে টি-টোয়েন্টিতে প্রথমবার নন-স্ট্রাইক প্রান্তে দেখা গেল বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে।তাতে অবশ্য লাভ হয়নি খুব একটা। তামিম ফেরেননি, তবে লিটন ফিরেছেন দ্বিতীয় ওভারের একদম প্রথম বলেই। দলের রান তখন মাত্র এক! সাকিবকে এদিন আর দেখা যায়নি ওয়ান ডাউনে। সাব্বির রহমান এসেছিলেন প্রথম উইকেট পড়ার পর। এসেই ঝড়ো একটা শুরুও দিয়েছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। সাব্বিরের টানা তিন চারে শাপুর জাদরানের ওভারে এসেছিল ১৭ রান।আফগান অধিনায়ক আজগর স্ট্যানিকজাই পঞ্চম ওভারে আক্রমণে এনেছিলেন মোহাম্মদ নবীকে। এসেই নিজের ওভারের দ্বিতীয় বলেই ফিরিয়েছেন সাব্বিরকে। তামিমের সঙ্গে দারুণ বোঝাপড়ায় এরপর মুশফিকুর রহিম গড়েছেন ৪৫ রানের জুটি। সমান এক চার ও ছয়ে ২২ রান করে বাংলাদেশ উইকেটরক্ষকও ফিরেছেন সেই নবীর বলেই।মাহমুদউল্লাহ শুরুটা করেছিলেন ছক্কা হাঁকিয়েই। তবে করিম জান্নাতের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরের রাস্তাটা ডানহাতি অলরাউন্ডারকে ধরতে হয়েছে ১৪ রানেই। এরপরই মঞ্চে আবির্ভাব রশিদের। আগের দুই ওভারে পাননি কোনো উইকেট। নিজের তৃতীয় ওভারেই তুলে নিয়েছেন তিন উইকেট।আফগান লেগ-স্পিনারের প্রথম শিকার তাঁর আইপিএল দল সানরাইজার্স হায়দরবাদ সতীর্থ সাকিব। এরপর তামিমকেও ফিরতে হয়েছে রশিদের বলেই। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৮ বলে ৪৩ রান করে আউট হয়েছেন এই বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান। তামিম ফিরে যাওয়ার ঠিক পরের বলেই মোসাদ্দেক হোসেনকে সাজঘর দেখিয়ে দেন শিদ। পরে সৌম্য সরকারকেও ফিরিয়ে দেন ১৯ বছরের তরুণ। দ্বিতীয় ম্যাচ দিয়েই একাদশে জায়গা আবু হায়দার রনি অবশ্য চমক দেখিয়েছিলেন ব্যাট হাতে। তাঁর দুই ছয় আর এক চারে ২৩ রানের ইনিংসে বাংলাদেশ পেয়েছে কিছুটা মান-বাঁচানো সংগ্রহ। আফগানদের হয়ে রশিদ  নিয়েছেন সর্বোচ্চ চার উইকেট। এছাড়া নবীর ঝুলিতে গেছে দুই উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

বাংলাদেশ- ১৩৮/৮ (২০ ওভার) তামিম ৪৩, মুশফিক ২২, আবু হায়দার ২১*, মাহমুদউল্লাহ ১৪, সাব্বির ১৩, নাজমুল ৬, সাকিব ৩, সৌম্য ৩, লিটন ১, মোসাদ্দেক ০। রশিদ ৪/১২, নবী ২/১৯, করিম ১/৪০, শাপুর ১/৪২)।

Comments are closed.

More News...

Fatal error: Call to undefined function tie_post_class() in /var/sites/s/sorejominbarta.com/public_html/wp-content/themes/bdsangbad_magazine_themes/includes/more-news.php on line 40