রোনালদো-ম্যাজিকে সেমির পথে রিয়াল

রোনালদো-ম্যাজিকে সেমির পথে রিয়াল

চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচ। ‘হাই ভোল্টেজ’ ম্যাচের তকমা পেতে আর কোনো উপাদান লাগে? এমন ম্যাচেই গতকাল রাতে মুখোমুখি হয়েছিল জুভেন্টাস-রিয়াল মাদ্রিদ। জমজমাট এই লড়াই শেষ পর্যন্ত জয় হলো চ্যাম্পিয়নস লিগের সেরা দলেরই। গতবারের রানার্সআপ জুভেন্টাসকে তাদের মাটিতে ৩-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমির পথে এক পা দিয়ে রাখল গত দুবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ। রিয়ালের হয়ে জোড়া গোল করেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

ঘরের মাঠ আলিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামে শুরুতেই ধাক্কা খায় জুভেন্টাস। ম্যাচ শুরুর মাত্র ২ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডেই রিয়ালকে এগিয়ে দেন রোনালদো। চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে এটি রোনালদোর সবচেয়ে দ্রুততম গোল। বাঁ পাশ থেকে ইস্কোর পাসে ডান পায়ের জোরালো শটে গোল করেন তিনি। এই গোলের মাধ্যমে চ্যাম্পিয়নস লিগে টানা ১০ ম্যাচে গোল করার রেকর্ডও গড়েন এই তারকা।

গোল খেয়ে খেলায় ফিরে আসার চেষ্টায় মরিয়া হয়ে ওঠে জুভেন্টাস। ম্যাচের ২৩ মিনিটে সুযোগও আসে। তবে দিবালার ফ্রিকিক থেকে হিগুয়েইন শট নিলে নিশ্চিত গোলের হাত থেকে রিয়ালকে বাঁচান নাভাস। ম্যাচের ৩৬ মিনিটে টনি ক্রুসের শট গোলবারে প্রতিহত হলে গোল বঞ্চিত হয় রিয়াল। ৩৮ মিনিটে দিবালার কর্নার থেকে কিয়েল্লিনি হেড করলেও গোলের দেখা পায়নি জুভেন্টাস। প্রথমার্ধের মিনিটখানেক আগে ডি-বক্সের ভেতর ক্যাসিমেরোর হাতে অনিচ্ছায় বল লাগলে জুভেন্টাস ফুটবলাররা হ্যান্ডবলের আবেদন করেন। কিন্তু রেফারি আবেদন নাকচ করে দেন।

১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় জিনেদিন জিদানের দল। বিরতি থেকে ফিরেও আক্রমণ চালিয়ে যায় রিয়াল মাদ্রিদ। ম্যাচের ৫৬ মিনিটে দিবালাকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন রামোস। এর আগের ম্যাচেও হলুদ কার্ড পেয়েছিলেন তিনি। এর ফলে জুভেন্টাসের বিপক্ষে পরের লেগে তিনি খেলতে পারবেন না।

ম্যাচের ৬৪ মিনিটে আবার রোনালদোর গোল। কারভাহালের ক্রস থেকে অসাধারণ মনোমুগ্ধকর বাইসাইকেল কিকে ডি-বক্সের ভেতর থেকে গোল করেন রোনালদো। গোলটি এতটাই উপভোগ্য ছিল যে পুরো স্টেডিয়ামের দর্শক পর্যন্ত করতালি দিয়ে রোনালদোকে অভিবাদন জানায়। ম্যাচের ৬৮ মিনিটে কারভাহালকে ফাউল করে দিবালা দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখার মাধ্যমে লাল কার্ড পেয়ে মাঠ ছাড়লে ১০ জনের দলে পরিণত হয় জুভেন্টাস।

ম্যাচের ৭২ মিনিটে শেষ গোলটি পান মার্সেলো। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে ওয়ান-টু-ওয়ান পাসে গোল করেন ব্রাজিলিয়ান এই তারকা। শেষের দিকে দুদলই আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে খেললেও কেউই গোলের দেখা পায়নি। ফলে প্রথম লেগ শেষে ৩-০ গোলের জয় নিয়ে সেমিফাইনালের পথে এগিয়ে থাকল রিয়াল মাদ্রিদ।

Leave a reply

Minimum length: 20 characters ::

More News...

Fatal error: Call to undefined function tie_post_class() in /var/sites/s/sorejominbarta.com/public_html/wp-content/themes/bdsangbad_magazine_themes/includes/more-news.php on line 40