খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়েও মিথ্যাচারে নেমেছে বিএনপি

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়েও মিথ্যাচারে নেমেছে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়েও মিথ্যাচারে নেমেছে দলটির নেতারা।

শনিবার দুপুরে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের আশুলিয়ার জিরাবো এলাকায় সড়কের সার্বিক অবস্থা পরিদর্শন করতে গিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এই অভিযোগ করেন।

এসময় মন্ত্রী বলেন, কারগারে গিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা দেখে ঢাকার সিভিল সার্জনও জানিয়েছেন বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই রয়েছে। আর খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে বলেন, দেশে চিকিৎসা করার মতো অবস্থা যদি না থাকে তবে ডাক্তারদের পরামর্শ বলে দেবে কি করতে হবে।

টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে জুলাই-আগষ্টের মধ্যে এলিভেটেট এক্সপ্রেসওয়ের কাজ শুরুর কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সড়কটির আশুলিয়া বাজার থেকে ডিইপিজেড পর্যন্ত ফোর লেনও করা হবে।

মন্ত্রীর সাথে এসময় ঢাকা-১৯ আসনের সাংসদ ডা. এনামুর রহমান, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেওয়ান মেহেদী হাসান মঞ্জু, আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকার, আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক শাহাদাত হোসেন খাঁনসহ সড়ক বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে শুক্রবার বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা সম্পর্কে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দেন।

বিএনপির কারাবন্দী নেত্রী খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে দলটি।

শুক্রবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী খালেদা জিয়া এখন অসুস্থ। অবিলম্বে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি। খবর বিবিসির।

‘তার ব্যক্তিগত যে চিকিৎসক রয়েছেন, সেই ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।’

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে যে অবস্থায় রাখা হয়েছে, তাতে তার স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে বলে তারা আশঙ্কা করছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার সব চিকিৎসা যেহেতু দেশের বাইরে হয়েছে, সেজন্যে তাকে জামিন দিয়ে চিকিৎসার জন্য বাইরে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

পরে অবশ্য আবার তিনি একথার ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, কারামুক্তির পর খালেদা জিয়া নিজেই সিদ্ধান্ত নেবেন দেশে নাকি বিদেশে চিকিৎসা করাবেন।

প্রসঙ্গত, গত বুধবার খালেদা জিয়াকে একটি দুর্নীতির মামলায় আদালতে আনার কথা ছিল। কিন্তু সেদিন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জানান, অসুস্থতার কারণে তাকে আদালতে হাজির করা যায়নি।

এরপর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ২৯ মার্চ বৃহস্পতিবার কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তাকে জানানো হয়, খালেদা জিয়া অসুস্থ, তাই সাক্ষাৎ করা যাবে না।

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিএনপির দাবির জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, যদি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দরকার হয়, সরকার অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে। এখানে কোনো রকমের দ্বিধা-দ্বন্দ্বের ব্যাপার নেই।

‘খালেদা জিয়া জেলে আছেন বলে সরকার তার প্রতি অমানবিক আচরণ করতে পারে না। আমাদের সরকার সেরকম সরকার নয়।’

তিনি আরও বলেন, চিকিৎসকরা যদি বলেন যে দেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সম্ভব নয়, সেক্ষেত্রে তাকে বিদেশেও পাঠানো যেতে পারে।

Leave a reply

Minimum length: 20 characters ::

More News...

Fatal error: Call to undefined function tie_post_class() in /var/sites/s/sorejominbarta.com/public_html/wp-content/themes/bdsangbad_magazine_themes/includes/more-news.php on line 40